মোঃ আব্দুল আজিম (দিনাজপুর২৪.কম) নানা প্রকার প্রলোভন দেখিয়ে সুখের সংসার থেকে ছিনিয়ে এনে বিয়ের পর স্ত্রীকে নির্যাতন ও ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে সংসার না করার অভিযোগ করেছেন দিনাজপুরের বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার আদিল হোসেনের স্ত্রী আকলিমা খাতুন।
প্রাক্তন পুলিশ কন্সটেবল ছলিম উদ্দিনের কন্যা আকলিমা খাতুন নিজের জীবন ঘর সংসার করার এক সন্তান ও স্বামীকে নিয়ে ভালই কাটছিল তার সংসার। কিন্তু পাশাপাশি গ্রাম হওয়ার সুবাদে দীর্ঘদিন থেকে তাদের পরিচয় ছিলো। বিরল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার আদিল হোসেনের সাথে পরিচয় হওয়ার পর তার জীবনে আরেকটি অধ্যায়ের সুচনা হয়। আদিল হোসেন বিবাহিত জীবনে ২ কন্যা ও ১ পুত্র সন্তানের পিতা। আদিলের স্ত্রী থাকা সত্বেও আকলিমার সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ার পর তাদের ইসলামী সরিয়া মোতাবেক বিবাহ হয়। বিয়ের কয়েক মাস যেতে যা যেতেই শুরু আকলিমার উপর যৌতুকের চাপ। যৌতুকের জন্য আদিলের পরিবারের সকলেই আকিলামার উপর শারীরিক নির্যাতন করতে শুরু করে। নির্যাতনের স্বীকার হয়ে আকলিমা কয়েকবার দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেয়ার পর আদিলের বিরুদ্ধে বিরল থানায় একটি নারী ও শিশু নির্যাতন মামলা দায়ের করেন।
বর্তমানে আকলিমা খাতুন আদিলের সংসার করেই বাকি জীবন কাটিয়ে দিতে চায়। কিন্তু আদিল হোসেন সরকারী চাকুরীজীবি হওয়ায় তিনি আর আকলিমাকে নিয়ে সংসার করতে ইচ্ছুক নয়। এদিকে আকলিমা খাতুন স্বামী আদিলের সংসারে ফিরে যেতে প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।