কাশী কুমার দাস (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুর জেলার সদর উপজেলার ৪নং শেখপুরায় স্থাপিত কিষামত মাধবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কর্মরত প্রধান শিক্ষক উদয় চন্দ্র রায় গত ১১ আগষ্ট /২০১৫ তারিখে ব্রেইন স্টোক করলে তার অভিভাবক দিনাজপুর জিয়া হার্ট ফাউন্ডেশনে তাৎক্ষনিকভাবে ভর্তি করলে কর্মরত চিকিৎসকগন তাকে আইসিইউ এ লাইফ সাপোর্ট চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন।  ১২ই আগষ্ট/২০১৫ ইং তারিখে বিকাল ৩.০০ঘটিকার সময় কর্মরত চিকিৎসকগন তাকে মৃত ঘোষনা করলে তার নিজ এলাকা এবং কর্ম এলাকা ৪নং শেখপুরা ইউনিয়নে শোকের ছায়া নেমে আসে। শিক্ষক উদয় চন্দ্র রায়ের মৃতদেহ  সন্ধ্যা ৭.৩০ ঘটিকার সময় এ্যাম্বুলেন্স যোগে প্রথমত তার কর্ম বিদ্যালয়ে আনা হলে হাজার হাজার নারী-পুরুষ সহ তার বিদ্যালয়ের শিক্ষার্র্থী , অভিভাবক, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য সহ বিপুল পথচারী তার অকাল মৃত্যুতে শোক প্রকাশ সহ ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধ্যা নিবেদন করেন। পরবর্তীতে তার মৃতদেহ কর্মস্থল থেকে তার নিজ বাসভবন চিরিরবন্দর উপজেলা গেট সংলগ্নে নিয়ে গেলে সেখানেও হাজার হাজার মানুষ , আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব তাকে ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধ্যা নিবেদন করেন। অতপর তাকে রাতেই স্থানীয় শ্বশ্মানে তার মৃতদেহ দাহ্ করা হয়। শিক্ষক উদয় চন্দ্র রায় চিরিরবন্দর উপজেলার চিরিরবন্দর গ্রামের মৃত দীনবন্ধু রায়ের ৪ পুত্র সন্তানের মধ্যে তিনি তৃতীয় সন্তান। তার মাতার নাম গৌরি বালা রায় একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী । স্ত্রী সুজাতা রানী রায়, একমাত্র  কন্যা নন্দিনী রায় (৭ বছর) ,মাতা  ও তিন ভাই এর সাজানো পরিবার থেকে উদয় চন্দ্র রায়ের অকাল মৃত্যু হলে পরিবারে শোকের ছায়া নেমে আসে। মৃত্যু কালে তার বয়স  ছিল ৩৯ বছর। উদয় চন্দ্র রায় শিক্ষকতা জীবনে শুধু শিক্ষকতা নয় বিভিন্ন সামাজিক , সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় কাজে নেতৃত্ব দিয়েছেন। এদিকে স্থানীয় সংগঠন কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (সিডিসি), দিনাজপুর পরিচালিত প্রতিবন্ধিতা বিষয়ক শিক্ষা কার্যক্রমে সেন্টার ফর ডিজএ্যাবিলিটি ইন্ ডেভেলপমেন্ট (সিডিডি), সাভার ঢাকায় প্রশিক্ষিত হয়ে তার বিদ্যালয়টি প্রতিবন্ধী বান্ধব করে  গড়ে তুলে শ্রেষ্ঠ আদর্শ শিক্ষক হিসেবে সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট হতে পুরস্কৃত হয়েছিলেন। তার মৃত্যুতে সদর উপজেলা প্রশাসন , উপজেলা পরিষদ, ইউনিয়ন পরিষদ, দিনাজপুর সৎসঙ্গ বিহার, দক্ষিণ নগর শিবপুর সৎসঙ্গ অধিবেশন কেন্দ্র, কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট সেন্টার (সিডিসি) পরিবার সহ সদর উপজেলার সকল শিক্ষকবৃন্দ শোকাহত হন এবং  তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করেন।