স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর২৪.কম) দু’পক্ষের আইনজীবীদের মধ্যে সংঘর্ষে আজ বৃহস্পতিবার দিনাজপুরের আদালত চত্বর প্রকাশ্যে মারামারি করতে দেখা যায়। করা হয় চেয়ার ভাংচুর। এদিকে মারামারিতে অন্তত ৬ জন আইনজীবী আহত হয় বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে গুরুতর আহত অবস্থায় দুজনকে দিনাজপুরের এম আবদুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সন্ধ্যা পর্যন্ত আদালত চত্বরে বহিরাগতদের প্রবেশ বন্ধ করে দেয় পুলিশ। ভিতরেও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জেলা আইনজীবী সমিতির একটি সূত্র ধরে জানায়, নির্বাচনের মাধ্যমে এক বছর মেয়াদী কমিটি গত বছরের ২৬ এপ্রিল দায়িত্বভার গ্রহণ করে। দায়িত্বভার গ্রহণের পর-পরই সাবেক কমিটির বিরুদ্ধে অর্থ তছরুরেপর অভিযোগ উত্থাপন করা হয়। অডিট কমিটির মাধ্যমে প্রায় এক কোটি টাকা তছরুপের কথা বলছে বর্তমান কমিটি। তবে সাবেক কমিটি বলছে আইনজীবী সমিতির নতুন ভবন নির্মাণসহ সকল কার্যক্রম উপ-কমিটি গঠনের মাধ্যমে নিয়মতান্ত্রিকভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে। অর্থ তছরুপের বক্তব্য মনগড়া ছাড়া আর কিছু নয় এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করা হলেও নিয়মিত কোন মামলা হয়নি। অর্থ তছরুপসহ আরো বিবিধ বিষয় নিয়ে বর্তমান কমিটি দায়িত্বভার গ্রহণের পর থেকেই মূলত আইনজীবীরা বিভক্ত হয়ে পড়ে। মামলা পাল্টা মামলার উদ্ভব হয়। ইতিপূর্বে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটলে উচ্চ মহল থেকে উভয়পক্ষকে শান্তিবস্থা বিরাজের পরামর্শ দেয়া হয়।

গত ৩ মার্চ বর্তমান কমিটি বিবিধসহ মোট ১০টি এজেন্ডা দিয়ে সাধারণ সভা আহবান করে। কিন্তু একজন বিজ্ঞ আইনজীবীর মৃত্যুর কারণে সাধারণ সভা বাতিল হয়ে যায়। পরদিন অর্থাৎ বুধবার বর্ধিত সভা আহবান করে। সদ্য বিদায়ী সাবেক কমিটির নেতৃবৃন্দ বলেন গঠনতন্ত্র মোতাবেক সভা শুরু অর্থাৎ কোরাম পূর্ণ না হলে পরবর্তীতে নোটিশ দিয়ে নির্ধারিত সময়ে সভা আহবান করতে হবে। এছাড়া আহুত সভায় ২ নং এজেন্ডা নিয়ে বিরোধী পক্ষ দৃঢ় অবস্থান নেয়।

সূত্রটির মতে জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির মেয়াদ একবছর। যা বাংলা চৈত্র থেকে চৈত্র পর্যন্ত হয়ে থাকে। অর্থাৎ ১লা চৈত্র বর্তমান কমিটির মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার কথা। কিন্তু আহুত সভায় ২ নং এজেন্ডায় কমিটির মেয়াদ বিষয় রাখার মাধ্যমে কমিটির মেয়াদ নির্বাচন ছাড়াই বৃদ্ধির অপচেষ্টা বলেই অভিহিত করছেন বিরোধীতাকারীরা। কিন্তু বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য হচ্ছে বিরোধিতা থাকতেই পারে। তা হবে ফোরামে। সভায় এসে তা আলোচনা করতে হবে। কিন্তু বিরোধী পক্ষ হটকারীমূলকভাবে ফোরামে না এসে আদালত চত্বরে ব্যানার ফেস্টুন মাইক লাগিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন। এরই এক পর্যায়ে সংঘর্ষের মত ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটে। মাথায় আঘাত পেয়ে এডভোকেট সারোয়ার আহম্মেদ বাবু ও আনম হাবিবুল্লা আহত হলে তাদের এম্বুল্যান্সে হাসপাতালে পাঠানো হয়। অন্যান্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ খবরে জানা গেছে, আদালত চত্বরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।