dudok-dinajpur24দেলোয়ার হোসেন বাদশা (দিনাজপুর২৪.কম) উপজেলা পরিষদের ২ কোটি ১৭ লাখ টাকা আতœসাতের অভিযোগে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের সাট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর দিলীপ কুমার রায়, নৈশ প্রহরী জগবন্ধু দত্ত ও অফিস সহায়ক সুফিয়ার প্রেমিক স্বপন কুমার দাসকে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আটক করেছে দুদক। জানা গেছে, ২০১২ সালের ৩০ আগষ্ট মোহাম্মদ মিজানুর রহমান (পরিচিতি নং-৫২৫৬) উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে যোগদান করার পর ২০১৫ সালের ১৬ আগষ্ট পর্যন্ত কর্মরত থাকা অবস্থায় ওই অফিসের অফিস সহায়ক সুফিয়া আক্তার (বর্তমানে হাকিমপুর উপজেলায় বদলী) ও তার প্রেমিক স্বপন কুমার দাস, তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আবু হান্নান মোঃ সাদেক ছোটন  এর সহযোগিতায় অফিসের সাঁট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর দিলীপ কুমার রায় ও  নৈশ প্রহরী জগবন্ধু দত্ত পরস্পর যোগসাজসে হাটবাজার ইজারা তহবিল, উপজেলা রাজস্ব তহবিল, ভুমি হস্তান্তর কর ১%  ভ্যাট, হাট উন্নয়ন কর ও এলআর খাতের ২ কোটি ১৭ লাখ টাকা আতœসাৎ করার অভিযোগ উঠলে দিনাজপুর স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক মোঃ ইমতিয়াজ হোসেন তদন্ত পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের সুপারিশসহ ১৪৪ ফর্দের তদন্ত প্রতিবেদন জেলা প্রশাসকের নিকট দাখিল করেন। তদন্তের প্রতিবেদনের আলোকে অভিযুক্তদের সাময়িক বরখাস্ত করেন ও তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে নির্দেশ দেন। জেলা প্রশাসকের নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলা পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দীন মোল্লা বাদী হয়ে চিরিরবন্দর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে অপরাধ স্বীকার করায় সাঁট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর দিলীপ কুমার রায় ও  নৈশ প্রহরী জগবন্ধু দত্তকে চাকুরী  থেকে চুড়ান্তভাবে অব্যাহতি দেয়া হয়। বিষয়টি অধিকতর তদন্তের জন্য স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের মইই উইং পরিচালক যুগ্মসচিব এবিএম আশফাকুর রহমান পুনরায় তদন্ত করেন। অপরদিকে অন্য আরেকটি মামলা হওয়ায় দুদকও তদন্তের জন্য মাঠে নামেন। এরই জের ধরে গত ৯ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার দুদক অপারেশন চালিয়ে বিভিন্ন এলাকা হতে সাঁট মুদ্রাক্ষরিক কাম কম্পিউটার অপারেটর দিলীপ কুমার রায়, নৈশ প্রহরী জগবন্ধু দত্ত ও অফিস সহায়ক সুফিয়া আক্তারের প্রেমিক স্বপন কুমার দাসকে আটক করে।