মাহবুবুল হক খান, (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুর সদর উপজেলার সৈয়দপুর (চাউলিয়াপাড়া) গ্রামের আনোয়ারুল ইসলাম (৩৫) নামে এক যুবককে অপহরণ করে নগদ টাকা-পয়সা লুট ও সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিয়েছে মর্মে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে অপহরণের শিকার আনোয়ারুল ইসলামের বড় ভাই সৈয়দপুর চাউলিয়াপাড়া গ্রামের মো. আব্দুল মজিদের ছেলে আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে ৩ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে আমিনুল ইসলাম জানান, আমার ছোট ভাই আনোয়রুল ইসলাম ঢাকায় একটি প্রাইভেট কোম্পানীতে চাকুরী করে। ঢাকা হতে ছুটিতে বাড়ীতে অবস্থানকালে গত ৪ জুন-১৫ তারিখ বিকেল আনুমানিক ৩টায় বাড়ী মেরামতের জন্য সিমেন্ট ও বালু ক্রয়ের জন্য নগদ ১৩,৫০০ টাকা নিয়ে পুলহাটের উদ্দেশ্যে বের হয়। পুলহাট সোহাগ বেকারীর নিকট পৌঁছলে অভিযুক্ত সৈয়দপুর (মোল্লাপাড়া) গ্রামের মৃত মকবুলের ছেলে রজব আলী (৩০), সেকেন্দারের ছেলে মো. মিম (২৫) ও রজব আলীর ছেলে টুটুল জরুরী কথা বলে কৌশলে ডেকে নিয়ে একটি আটো রিক্সায় উঠে। অটো রিক্সায় উঠে তাকে ধারালো অস্ত্র দেখিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে সদর উপজেলার দক্ষিণ উলিপুর টিকরী নামক স্থানে নিয়ে যায়।
সেখানে নিয়ে উল্লেখিত ৩ জনসহ অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জন তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে এলোপাথাড়া মারপিট করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে। এতে তার হাঁটু ভেঙ্গে যায়। এ সময় দুর্বৃত্তরা আমার ভাইয়ের নিকট থাকা ১৩ হাজার ৫শ’ টাকা ও একটি মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয় এবং ১০০ টাকা মূল্যের একটি সাদা স্ট্যাম্প এনে এতে স্বাক্ষর দিতে বলে। এ সময় আনোয়ার স্বাক্ষর দিতে রাজী না হওয়ায় অভিযুক্তরা ধারােেলা অস্ত্র দিয়ে কাতে হত্যার হুমকি দেয়। প্রাণভয়ে আনোয়ার ওই সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর দিতে বাধ্য হয়।
উল্লেখ্য, আনোয়ারকে তুলে নেয়ার সময় ঘটনাস্থলে উপস্থিত আরমান নেছা নামে পূর্ব পরিচিতা এক মহিলা আনোয়ারের বড় ভাই আমিনুল ইসলামকে খবর দিলে আমিনুল ইসলাম ঘটনার স্বাক্ষী আজগর আলী, হায়দার আলীসহ আনোয়ারকে খুঁজতে বের হন। খোঁজাখুজির এক পর্যায়ে সদর উপজেলার দক্ষিণ উলিপুর টিকরী নামক স্থানে নদীর ধারে হাত-পা বাধা অবস্থায় পাওয়া যায়। আমিনুল ইসলাম জানান, আমি ও আমার সঙ্গীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছলে আমাদের উপর আক্রমন করে ও হত্যা লাশ নদীতে ফেলে দেয়ার হুমকি দেয়। এ সময় তারা চিৎকার করলে তাদের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়।
পড়ে আমিনুল ইসলাম তার সঙ্গীদের নিয়ে আনোয়ারকে উদ্ধার করে দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে আনোয়াররুল ইসলাম হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।
এ ব্যাপারে আনোয়ারুল ইসলামের বড় ভাই আমিনুল ইসলাম বাদী হয়ে সৈয়দপুর (মোল্লাপাড়া) গ্রামের মৃত মকবুলের ছেলে রজব আলী (৩০), সেকেন্দারের ছেলে মো. মিম (২৫) ও রজব আলীর ছেলে টুটুলের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৭/৮ জনের বিরুদ্ধে কোতয়ালী থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।