(দিনাজপুর২৪.কম)  দিনাজপুর বিরল উপজেলার ২নং ফরক্কাবাদ ইউনিয়নে পূর্বের মামলার জেরকে কেন্দ্র করে ঐতিহ্যবাহী দেওয়ানজীদিঘী পুকুরে ভূমিদস্যুরা মাছ চুরি ও বিষ প্রয়োগে প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকার মাছ ক্ষতিসাধন করেছে।
জানা গেছে, বিরল উপজেলার ঐতিহ্যবাহী দেওয়ানজীদিঘী জনসাধারণের ব্যবহার্য ও আয়মা রেকর্ডীয় সম্পত্তি হিসাবে উল্লেখ রয়েছে। গত ১৯ জুন’১৯ তারিখে দেওয়ানজীদিঘী ঈদগাহ ইসলামিয়া এতিমখানা, কওমী হাফিজিয়া ও দাখিল মাদরাসা, ঈদগাহ মাঠ কমিটিসহ স্থানীয় এলাকাবাসী প্রায় ৫ হাজার উপকারভোগীদের পক্ষ থেকে দেওয়ানজীদিঘী পুকুরে প্রায় ৫ মন রুই-কাতলা, সিলভার কার্পসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ছাড়া হয়। আমাদের প্রতিনিধিকে আফছার আলীসহ এলাকাবাসী জানায় ফরক্কাবাদ মৌজার ২৮২৮ নং দাগের ৫.৪১ একর সম্পত্তি পুকুর শ্রেণী যা দেওয়াজীদিঘী নামে জনসাধারণের জন্য ব্যবহার্য সম্পত্তি এবং ২৭২৮ দাগের ৬.০৯ একর সম্পত্তি উক্ত পুকুরের পাড় এবং ২৮২৮/৩০৯৯ নং দাগের ১.০৬ একর সম্পত্তি ঈদগাহ মুসলমান সাধারণের ব্যবহার্য হিসাবে জমিদার পুর্নেন্দু নারায়ন রায় দেবশর্মা নামে নিস্কর চিরস্থায়ী আয়মা সম্পত্তি হিসেবে সি. এস ৪৪৯ নং খতিয়ান চলতি রূপে প্রকাশিত হয়েছে। উক্ত দাগের পুকুরের সম্পত্তি পুকুরের পানিতে গোসল, ওযু করা, গবাদী পশুর গোসল ও নানাবিধ কাজে ব্রিটিশ আমল থেকে স্থানীয় অধিবাসীগণ ভোগ দখল করে আসছেন। উক্ত দেওয়ানজীদিঘী পুকুরটি সুকৌশলে আকতার, তরিকুল ও ফারুকসহ কতিপয় ভূমিদস্যু জবর দখল করায় স্থানীয় জনসাধারণের পক্ষ থেকে আফছার আলী, মোকাদ্দেসসহ ১৫ জন বাদী হয়ে বিরল সহকারী জজ আদালত দিনাজপুর-এ তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মোকদ্দমা নং-৪৮/২০১৮ অন্য। ভূমিদস্যুরা দেওয়ানজীদিঘী পুকুরসহ জনসাধারণের ব্যবহার্য সম্পত্তির ভূয়া মালিক সাজার জন্য নানা অপকৌশল চালিয়ে যায়। ভূমিদস্যুরা পুকুরে মাছ চুরিসহ বিষয় প্রয়োগে প্রায় ২ লক্ষাধিক টাকার মাছ ক্ষতিসাধন করে। এ ব্যাপারে ফরক্কাবাদ এলাকাবাসীর পক্ষে মৃত: তমিজ উদ্দীন আহমেদের পুত্র মোঃ মোস্তাকিম গত ২৯ জানুয়ারি’ ২০ তারিখে অফিসার ইনচার্জ, বিরল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ ব্যাপারে সুষ্ঠুভাবে তদন্ত সাপেক্ষে উর্দ্ধতন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসী।