(দিনাজপুর২৪.কম) আজ সোমবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্টে বেসিক ব্যাংকের আবদুল হাই বাচ্চুর বিরুদ্ধে মামলা না করা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে সাংবাদিকদের নিকট ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।
দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হলে দুদক চেয়ারম্যানের সরে যাওয়া উচিৎ বলে মন্তব্য করেছেন ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস।

ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘বেসিক ব্যাংকের দুর্নীতির মূল ব্যাক্তি হলেন তৎকালীন চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাচ্চু। যার কারণে সরকার তাকে ব্যাংকের চেয়ারম্যানের পদ থেকে অপসারণ করেছে।

কিন্তু আজ অবধি বেসিক সংক্রান্ত যতগুলো মামলা হয়েছে তা কর্মচারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেই হয়েছে। চেয়ারম্যানের নামে কোনো মামলা হয়নি। যদি তার স্বেচ্ছাচারীতা ও একক সিদ্ধান্ত ঋণগুলোর সাথ্যে সম্পৃক্ত ছিল।

তাপস বলেন, ‘আমাদের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় বিভিন্ন সময় যদি তার স্বেচ্ছাচারীতা ও একক সিদ্ধান্ত ঋণগুলোর সাথে সম্পৃক্ত ছিল। সেই প্রেক্ষিতে কয়েকদফা তাকে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে কিন্তু মামলা করা হয়নি।

তাই আমরা মনে করি, জাতি মনে করে জননেত্রী শেখ হাসিনা যেই দুর্নীতি বিরোধী অভিযান শুরু করেছেন দুদকের এক্ষেত্রে জবাবদীহিতা আবশ্যকীয়। জাতি জানতে চায় কেন আব্দুল হাই বাচ্চুর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়নি।’

এক প্রশ্নের জবাবে ফজলে নূর তাপস বলেন, দুদক চেয়ারম্যান যদি মনে করেন কোনো প্রভাবের কারণে তিনি ব্যবস্থা নেননি তাহলে তিনি শপথ ভঙ্গ করেছেন এবং সেই কারণে তাঁর পদ থেকে সরে যাওয়া উচিৎ, তিনি যদি দায়িত্ব পালন করতে ব্যর্থ হন।

আর যদি মনে করেন কোনো প্রভাব দ্বারা তিনি প্রভাবিত হননি তাহলে নিশ্চই দুর্নীতি দমন বাচ্চুর বিরুদ্ধে মামলা করে, গ্রেপ্তার করে আশু পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।-ডেস্ক