(দিনাজপুর২৪.কম) নৃশংস ঘটনার শিকার হয়ে ৫ দিন পর মারা যাওয়া নুরসাত জাহান রাফির সোনাগাজীতে চলছে শোকের মাতম। একদিকে শোক, অন্যদিকে আতঙ্ক। গতরাতে নুসরাতের মৃত্যুর খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সোনাগাজী উপজেলা পরিণত হয়েছে এক আতঙ্কের শহরে। থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে পুরো এলালায়।

পরিস্থিতি ঠিক রাখতে উপজেলা শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। তাছাড়াও নুসরাতের নিজ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসায়  গেটেও কড়া পাহারা বসিয়েছে পুলিশ।  সরব উপস্থিতিও দেখা গেছে তাদের।

আজ সকালে মফস্বল শহরটিতে সরজমিনে দেখা যায়, সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশের সঙ্গে জেলা পুলিশ লাইন্স থেকে অতিরিক্ত সদস্যদের নিয়োগ করা হয়েছে। সেখানে ফেনী জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে কমপক্ষে ৪০ জন পুলিশ সদস্য টহল দিচ্ছেন।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক সংস্থার সদস্যদের উপস্থিতিতে স্থানীয়দের মাঝে ভীতির সঞ্চার হয়েছে। এলাকার রাস্তাঘাটে মানুষের আনাগোনা একদম নেই বললেই চলে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, মানুষের মাঝে ভয় কাজ করছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রবিউল ইসলাম বলেন, নুসরাত এর মৃত্যুর পরবর্তী সময়ে যে  কোন বিশৃঙ্খলা এড়াতে পুলিশ অবস্থান নিয়েছে। আমরা আশেপাশে সকল স্থানে টহল  দেবো। যাতে অপ্রীতিকর কোনো ঘটনা না ঘটে।

এ সময় সশস্ত্র পুলিশ ছাড়াও সাদা পোশাকের পুলিশ সদস্যদের দেখা গেছে। অন্যদিকে মাদরাসার পাশে একটি চায়ের দোকানে এখনো সাধারণ মানুষের মধ্যে আলোচনা চলছে। আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতেও নুসরাত। তারা সবাই যেন নুসরাতের লাশের অপেক্ষা করছেন। -ডেস্ক