(দিনাজপুর২৪.কম) প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে তুষার ইমরান পেলেন দ্বিতীয় ডবল সেঞ্চুরির। বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগের (বিসিএল) চতুর্থ রাউন্ডের প্রথম দিন দারুণ সেঞ্চুরি করে ছুঁয়েছিলেন ৯ হাজার রানের মাইলফলক। ১২৭ রানে অপরাজিত থেকে দ্বিতীয় দিন শুরু করে গতকাল ছাড়িয়ে যান নিজের ক্যারিয়ার সেরা ২০৩ রানের ইনিংসটিও। ২২০ রানের ইনিংসটি সাজান ৩৬৯ বলে ২২টি চার ও ৩টি ছয়ের মারে। বিসিএলে এটি ৫ম সর্বোচ্চ ইনিংস। ২০১৩ সালে ২৮৯ রানের ইনিংস খেলে মার্শাল আইযুব রয়েছেন শীর্র্ষে। তার পরেই আছেন শামসুর রহমান ২৬৭, অলক কাপালী ও রকিবুল হাসান ২২৮ রান করে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে আছেন। তার এই দারুণ ব্যাটিংয়ে শাহরিয়ার নাফীস ৭৪ ও ৫৭ রান করে সঙ্গ দেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতকে। শেষ পর্যন্ত ১৪৪.১ ওভারে ৫০১ রান করে থামে প্রাইম ব্যাংক সাউথ জোনের প্রথম ইনিংস। জবাব দিতে নেমে অফস্পিনার নাহিদুল ইসলামের বোলিংয়ে ১০৭ রানে ৪ উইকেট হারায় বিসিবি নর্থজোন। এখনো তারা পিছিয়ে আছে ৩৯৪ রানে।
গতকাল সাভারের বিকেএসপি-৪ মাঠে আগের দিনের ২৯২ রান নিয়ে ব্যাট করতে নামে সাউথ জোন। হাতে ছিল ৭টি উইকেট। আগের দিন ৫০ রান করা শাহরিয়ার নাফীস ব্যক্তিগত ৭৪ রানে বিদায় নিলেও দারুণ ব্যাটিং চালিয়ে যান তুষার। ১৭৪ বলে ৭টি চার ও ১টি ছক্কায় এ রান করেন নাফীস। তার শততম ম্যাচে ছুঁতে পারেননি সেঞ্চুরি। এরপর নাসির হোসেনের বলে বোল্ড হওয়ার আগে ২২০ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন তুষার। শেষদিকে মাত্র ৬৩ বল খেলে ৩টি চার ও ৫টি ছক্কার সাহায্যে ৫৭ রানের ইনিংস খেলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। নিজেদের প্রথম ইনিংসে দারুণ শুরু করেছিল নর্থজোন। তবে দলীয় ৬২ রানে নাজমুল হোসেনকে হারানোর পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট খোয়ায় তারা। ফলে দলীয় ১০৭ রান করতেই হারায় প্রথম সারির চার ব্যাটসম্যানকে। ৭৩ বলে ৪টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৬ রানের ইনিংস খেলেন ফরহাদ হোসেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
সাউথ জোন-নর্থ জোন (বিকেএসপি-৪)
টস: সাউথ জোন (ব্যাট)
সাউথ জোন প্রথম ইনিংস: ১৪৪.৪ ওভারে ৫০১ তুষার ইমরান ২২০, শাহরিয়ার নাফীস ৭৪,  মোসাদ্দেক হোসেন ৫৭, এনামুল হক বিজয় ৩৯, ইমরুল কায়েস ৩১, সৌম্য সরকার ২৬,  সোহরাওর্দী শুভ ৪/১০৫, নাসির হোসেন ২/৭৭, সানজামুল ২/১৭৩,শফিউল ইসলাম ১/৫৪)
নর্থ জোন প্রথম ইনিংস: ২৯ ওভারে ১০৭/৪ (ফরহাদ হোসেন ৫৬, নাজমুল হোসেন ২৪, নাহিদুল ইসলাম ৩/৪০)