(দিনাজপুর২৪.কম) বগুড়ায় কিশোরীকে ধর্ষণ ও মা-মেয়েকে ন্যাড়া করার ঘটনার প্রধান আসামি তুফান সরকার ও তাঁর স্ত্রীর বড় বোন নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া আকতারের আরও দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। এ নিয়ে এ মামলায় তৃতীয় দফায় তাঁদের রিমান্ড মঞ্জুর করা হলো।

শুক্রবার বগুড়ার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আহসান হাবিবের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার প্রধান আসামি তুফান সরকার, তাঁর স্ত্রীর বড় বোন ও নারী কাউন্সিলর মার্জিয়া আকতার এবং সহযোগী মুন্নার দ্বিতীয় দফা রিমান্ড শেষে আজ আদালতে হাজির করা হয়েছিল। তবে পুলিশ এই দুজনের পাঁচ দিন করে পুনরায় রিমান্ডের আবেদন করে। এছাড়া তুফানের সহযোগী মুন্না ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

বগুড়ার ওই কিশোরীকে ভালো কলেজে ভর্তির প্রলোভন দেখিয়ে গত ১৭ জুলাই ও পরে কয়েকবার ধর্ষণ করেন জাতীয় শ্রমিক লীগ বগুড়া শহর শাখার আহ্বায়ক তুফান সরকার। এ কাজে তাকে সহায়তা করেন তার কয়েকজন সহযোগী।

বিষয়টি জানতে পেরে তুফানের স্ত্রী আশা ও তার বড় বোন বগুড়া পৌরসভার সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মার্জিয়া হাসান রুমকিসহ ‘একদল সন্ত্রাসী’ গত ২৩ জুলাই দুপুরে ওই কিশোরী এবং তার মাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। পরে তাদের মারধর করে নাপিত দিয়ে দুজনের মাথা ন্যাড়া করে দেয়।

এ ঘটনায় ২৩ জুন বিকালে তুফানসহ ১০ জনকে আসামি মামলা করেন ওই কিশোরীর মা। মামলার পর ঘটনাটি গণমাধ্যমে এলে দেশ জুড়ে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়; এরপর তুফানকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করে জাতীয় শ্রমিক লীগ। -ডেস্ক