বি. এম. জুলফিকার রায়হান, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি (দিনাজপুর২৪.কম) সাতক্ষীরার তালায় চিংড়ী ঘেরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে লুৎফর রহমান নিকারী (৬০) নামের এক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। নিহত লুৎফর তালা সদর’র জেয়ালা নলতা গ্রামের মৃত আজিজুর নিকারীর ছেলে। সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে জেয়ালা নলবুনিয়া বিলে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমান’র চিৎড়ি ঘেরে ঘটনাটি ঘটে। এঘটনায় তালা থানা পুলিশ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিযার রহমানকে আটক করেছে।

এদিকে থানায় আটক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমান’র শাস্তির দাবীতে সংশ্লিষ্ট গ্রামবাসী মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে তালা উপশহরে বিক্ষোভ মিছিল শেষে থানার সামনে খুলনা-পাইকগাছা সড়কে ঘন্টাব্যপী অবস্থান ধর্মঘট করে। এসময় সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (তালা সার্কেল) মো. হুমায়ন কবির ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন করেন।

নিহত লুৎফর নিকারীর জামাতা ইউনুচ আলী জানান, তার শ্যালক সেলিম নিকারী সোমবার রাতে নলবুনিয়া সরকারী খাল থেকে মাছ ধরে ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ারের ঘেরের ভেড়ি বাঁধ দিয়ে বাড়ি ফিরছিল। এসময় ঘেরের লোকজন সেলিমকে মাছ চুরির অভিযোগে আটকিয়ে রাখে। একপর্যায়ে ঘের মালিক ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমান, তালা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ তুহিন ও ঘেরের কর্মচারী রনী ঘটনাস্থলে এসে সেলিমকে ব্যপক মারপিট করে। বিষয়টি জানতে পেরে সেলিম’র পিতা লুৎফর রহমান ঘটনাস্থলে আসলে মশিয়ার ও তার লোকজন বৃদ্ধ লুৎফরকে মারপিট ও বুকে লাথি মারে। এতে ঘেরের মধ্যে পড়ে যেয়ে লুৎফর রহমান ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। এছাড়া গুরুতর আহত হওয়ায় সেলিম নিকারীকে তালা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এব্যপারে, হত্যার অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমান বলেন, মাছ চুরির সময়ে সেলিমকে ঘেরের কর্মচারীরা হাতেনাতে আটক করে। পরে সংবাদ পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে যায় এবং সেলিমকে ছেড়ে দিই। এসময়ে সেলিমের পিতা লুৎফর রহমান বাড়ি থেকে দৌড়িয়ে আমার ঘেরে আসার সময় পাশর্^বর্তী রুহুল নিকারীর ঘেরের সীমানায় পৌছিয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঘেরের মধ্যে পড়ে যায়। তৎক্ষনাত তাকে তালা হাসপাতালে নিয়ে আসা হলেও তিনি মারা যান।

এব্যপারে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রাজিব সরদার জানান, রাতে হাসপাতালে আনার আগেই লুৎফর রহমান’র মৃত্যু হয়।

এদিকে, রাত ৩টার দিকে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমান নিহত লুৎফরকে দেখার জন্য তালা হাসপাতালে গেলে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসী তাকে অবরুদ্ধ করে রাখে। এসময় তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল’র নেতৃত্বে পুলিশ সরদার মশিয়ারকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নিয়ে আসে। এঘটনায় নিহত সেলিম বাদী হয়ে তালা থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানাগেছে (এরিপোর্ট লেখাকালে)।

তালা থানার ওসি মো. মেহেদী রাসেল জানান, লুৎফর রহমান নিকারী খুনের ঘটনায় তালা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সরদার মশিয়ার রহমানকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আটক রাখা হয়েছে। এব্যপারে এজাহার পাওয়ার পর পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।