বি. এম. জুলফিকার রায়হান (দিনাজপুর২৪.কম) সাতক্ষীরার তালায় কপোতাক্ষ নদের উপর ক্রসড্যাম স্থাপন’র দাবীতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২৭ জানুয়ারী) বেলা ১১ টায় তালা উপজেলা পানি কমিটির আয়োজনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা পানি কমিটির সভাপতি, এম. ময়নুল ইসলাম বলেন, কপোতাক্ষ নদীর সাথে প্রত্যক্ষভাবে প্রায় ২০ লক্ষ মানুষের জীবন-জীবিকা জড়িত। এ অববাহিকায় বিগত দিনে ভয়াবহ জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। পুনরায় যাতে কপোতাক্ষ অববাহিতায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি না হয় এবং লক্ষ লক্ষ মানুষদের যাতে আক্রান্ত হয়ে দূর্বিসহ জীবন-যাপন করতে না হয় সেজন্য অতি দ্রুত ক্রসড্যাম নির্মাণ’র দাবী জানাচ্ছি।
তিনি বলেন, কপোতাক্ষ নদের নাব্যতা বৃদ্ধি ও জলাবদ্ধতা সমস্যার সমাধানকল্পে বর্তমান সরকার ‘কপোতাক্ষ নদের জলাবদ্ধতা দূরীকরণ প্রকল্প (১ম পর্যায়)’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে পাখিমারা বিলে ২০১৫ সালে টিআরএম বাস্তবায়ন এবং ২০১৭ সালে নদী খনন কার্যক্রম সম্পন্ন করে। প্রকল্পের নিয়মানুযায়ী খননকৃত নদী রক্ষায় প্রতি বছর টিআরএম এর উজানমুখে শুষ্ক মৌসুমের শুরুতে ক্রসড্যাম নির্মাণ ও যথাসময়ে তা’ অপসারণ করার কথা। কারন, সারা বৎসরের ৮০ ভাগ পলি এই মৌসুমেই নদীতে অবক্ষেপিত হয়ে নদী ভরাট হয়ে যায়।
তিনি বলেন, টিআরএম বিলের কপোতাক্ষ নদীর উজানে ক্রসড্যাম দেওয়ার মূল উদ্দেশ্য হলো খননকৃত নদী যাতে আবার পলি পড়ে ভরাট না হয় এবং সমস্ত পলি যাতে টিআরএম প্রকল্পভুক্ত বিলে অবক্ষেপিত হতে পারে। কিন্তু বিগত বছরগুলোতে বিলম্বে ক্রসড্যাম নির্মিত হওয়ায় পলি নদী বক্ষে জমে যায় এবং নদীর এক-তৃতীয়াংশ ভরাট হয়ে যায়। চলতি বছরে যথাসময় ক্রসড্যাম কার্যক্রম গৃহীত না হওয়ায় এবছর নদীর ৫০ ভাগ ভরাট হয়ে যাবে। যে কারনে, আগামী বর্ষা মৌসুমে এলাকা ফের জলাবদ্ধতায় আক্রান্ত হবে বলে আশংকা দেখা যাচ্ছে।
টিআরএম’র সুফল ধরে রাখার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ’র আন্তরিকতা নিয়ে জনগণের মধ্যে সন্দেহ দেখা দিয়েছে- জানিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা এম. মইনুল ইসলাম বলেন, সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে ক্রসড্যাম নির্মাণ কাজ সমাপ্ত করতে হবে এবং আগামীতে নদী রক্ষায় প্রতি বছর ডিসেম্বর মাসের মধ্যে অবশ্যই ক্রসড্যাম নির্মাণ করতে হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন’র জন্য তিনি সরকার ও সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

তালায় হাইওয়ে পুলিশের ধাওয়ায় থেকে পালাবার সময় মাহেন্দ্র চালক নিহত
হাইওয়ে পুলিশের ধাওয়া খেয়ে পালাবার সময় সাতক্ষীরার তালায় আব্দুস সামাদ মোড়ল নামের এক থ্রি-হুইলার (মাহেন্দ্র) চালক নিহত হয়েছে। সোমবার সকাল ৯টার দিকে তালা উপজেলার পাটকেলঘাটা থানার হারুন-অর-রশিদ কলেজ’র সামনে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়কে দূর্ঘটনাটি ঘটে।
সংশ্লিষ্ট নগরঘাটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান লিপু জানান, নিহত মাহেন্দ ্রচালক আব্দুস সামাদ মোড়ল (৫২) নগরঘাটা এলাকার মৃত. আছিরউদ্দিন মোড়লের ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শী সঞ্জয় দাস জানান, সাতক্ষীরা থেকে যাত্রীবিহীন থ্রি হুইলার মাহেন্দ্র নিয়ে পাটকেলঘাটা ফিরছিলেন আব্দুস সামাদ। পথিমধ্যে হাইওয়ে পুলিশ তাকে দাঁড়ানোর সিগন্যাল দেয়। সেই সিগন্যাল অমান্য করে আব্দুস সামাদ মাহেন্দ্র দ্রুত চালিয়ে পাটকেলঘাটার দিকে চলে আসছিল। পেছন থেকে পুলিশ তাকে ধাওয়া করলে চালক সামাদ মোড়ল দ্রুত মাহেন্দ্র চালাতে যেয়ে নিয়ন্ত্রন হারিয়ে ফেলে। একপর্যায়ে হারুন-অর-রশিদ কলেজ এলাকায় রাস্তার পাশের খাদে মাহেন্দ্র উল্টে পড়লে চাপা পড়ে চালক সামাদ ঘটনাস্থলেই নিহত হয়।
এবিষয়ে পাটকেলঘাটা থানার ওসি ওয়াহিদ মোর্শেদ বলেন, পুলিশের ধাওয়া খেয়ে মাহেন্দ্র উল্টে যাওয়ায় চালক নিহত হয়েছেন শুনেছি। নিহত’র লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।