(দিনাজপুর২৪.কম) দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। তবে ভুল স্বীকার করায় সাজা কমেছে এক বছর। সাকিবের নিষেধাজ্ঞা নিয়ে ভক্ত থেকে শুরু করে ক্রিকেট বোর্ড এবং সতীর্থরা দুঃখ প্রকাশ করছেন।

সাকিব আল হাসান নিষিদ্ধ হয়েছেন যে জুয়াড়ির সঙ্গে আলাপচারিতার সূত্র ধরে, সেই দিপক আগারওয়াল প্রস্তাব দিয়েছিলেন তামিম ইকবালকেও। তবে তামিম তাৎক্ষণিক তা জানান বিসিবির দুর্নীতি দমন কর্মকর্তাকে। পরে আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগকে সেই প্রমাণ দেখান বাংলাদেশের ওপেনার।

২০১৭ সালের নভেম্বরে তামিমকে ওই প্র্রস্তাব দিয়েছিলেন আগারওয়াল, বিষয়টি নিশ্চিত করেছে বিসিবির একটি সূত্র। সাকিবের মতো তামিমকেও হোয়াটসঅ্যাপে বার্তাটি দিয়েছিলেন আগারওয়াল। তামিম সেটি তখনই জানান বিসিবির দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা মেজর (অব) মোর্শেদকে।

পরে সাকিবের ঘটনার তদন্তে থাকা দল তলব করেছিল তামিমকেও। ঢাকার একটি হোটেলে ডাকা হয় তাকে। আগারওয়ালের সঙ্গে যোগাযোগের কথা জানতে চাওয়া মাত্রই তামিম জানিয়ে দেন যে এরকম প্রস্তাব পেয়েছিলেন এবং বিসিবির দুর্নীতি দমন কর্মকর্তাকে জানিয়েছেন তখনই।

বিসিবির দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা মেজর (অব) মোর্শেদ পরে আইসিসির কর্মকর্তাদের নিশ্চিত করেন যে তামিম সেটি জানিয়েছিলেন এবং বিসিবিও তখন আইসিসিকে জানিয়েছিল। সব প্রমাণ দেখে তামিমকে ‘ক্লিয়ারড’ বলে ছেড়ে দেন আইসিসির দুর্নীতি দমন কর্তারা।

সাকিবের নিষেধাজ্ঞার খবর জানিয়ে পাঠানো আইসিসির বিস্তারিত ব্যাখ্যায় আছে, সাকিবের পরিচিত যে ব্যক্তি জুয়াড়ি আগারওয়ালকে সাকিবের নম্বর দিয়েছিলেন, সেই একই ব্যক্তির কাছে বাংলাদেশের আরও কিছু ক্রিকেটারের নম্বর চেয়েছিলেন আগারওয়াল। তামিমকে তিনি প্রস্তাব দেন সেই সময়ই। -ডেস্ক

সুত্রঃ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম