(দিনাজপুর২৪.কম)  তামাকজনিত রোগে অকাল মৃত্যুর কারণে প্রতি বছর ৩০ হাজার ৫৭০ কোটি টাকার অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়ছে বাংলাদেশ। ১০ হাজার বাড়িতে গবেষণা চালিয়ে এমন ক্ষতি নির্ধারণ করা হয়েছে। গতকাল ঢাকা ক্লাবে গবেষণার ফল উপস্থাপনের সময় এসব কথা জানানো হয়। বাংলাদেশ ক্যানসার সোসাইটি, আমেরিকান ক্যানসার সোসাইটি, ক্যানসার রিসার্চ ইউ কে ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগ যৌথভাবে এ গবেষণা কর্মটি পরিচালনা করে। তারা তামাক গ্রহণের কারণে অসংক্রামকসহ সাতটি রোগের অর্থনৈতিক ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি বিষয়ক একটি গবেষণাকর্ম তৈরি করে।
গবেষণার ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান, স্বাস্থ্য বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, জাতীয় অধ্যাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আবদুল মালিক, দেশের নামী ক্যানসার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক এম এ হাই, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান ড. নাসিরউদ্দিন আহমেদ, সাবেক অতিরিক্ত সচিব শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ ক্যানসার সোসাইটির যুগ্ম মহাসচিব ও গবেষণা কমিটির টিম লিডার অধ্যাপক ডা. গোলাম মহিউদ্দিন ফারুক এবং বাংলাদেশ ক্যানসার সোসাইটির সভাপতি ডা. মোল্লা ওবায়েদুল্লাহ বাকী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। গবেষণা প্রতিবেদনে জানানো হয়, বর্তমানে দেশে তামাক সেবনের কারণে ১৫ লাখের বেশি প্রাপ্তবয়স্ক নারী ও পুরুষ এবং ৬১ হাজারের বেশি শিশু পরোক্ষ ধূমপানের প্রভাবে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। ২০১৮ সালে তামাকজনিত রোগে প্রায় এক লাখ ২৬ হাজার জনের অকাল মৃত্যু হয়েছে।এটা দেশে সব মৃত্যুর ১৩ দশমিক ৫ শতাংশ। বর্তমানে দেশে ধূমপায়ীর সংখ্যা তিন লাখ ৭৭ হাজার। ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত দেশ গড়তে হলে প্রতি বছর ১৮ লাখ তামাক ব্যবহারকারীকে তামাক ব্যবহার থেকে সরিয়ে আনতে হবে। -ডেস্ক