(দিনাজপুর২৪.কম) আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, সাংবাদিকদের ‘খামোশ’ বলে ড. কামাল যে দম্ভোক্তি করেছেন তাতেই প্রমাণ করছেন তিনি বাংলাদেশের নষ্ট রাজনীতির প্রবক্তা। ফেনী থেকে তার নির্বাচনী এলাকায় যাওয়ার পথে শনিবার (১৫ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় ফেনীর দাগনভূঁঞায় সড়ক প্রশস্তকরণ কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করতে এসে তিনি এ কথা বলেন। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, পুরোনো পাকিস্তানি ‘খামোশ’ শব্দটি ব্যবহার করে তিনি প্রমাণ করলেন তার স্বরূপ ডাকতে পারেননি। তিনি মুখে নীতি কথা বললেও আসল রূপ উন্মোচিত হয়ে গেছে। বয়স কমে গেলে শরীরের শক্তি কমে যায়, মুখের জোর বেড়ে যায় আর সে কারণেই ড. কামাল এমনটা করেছেন। কাদের আরো বলেন, সারাদেশে নৌকার গণজোয়ার দেখে বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট বেসামাল হয়ে উঠেছে। আর সে কারণে ড. কামাল বেপরোয়া চালকের চেয়েও বেপরোয়া শব্দ ব্যবহার করেছেন। দেশে এখন নৌকার গণজোয়ার, আর ধানের শীষের গণভাটা চলছে বলেও মন্তব্য করেন সেতুমন্ত্রী।

নৌকার এ জোয়ার দেখে বিএনপি নির্বাচনী পরিস্থিতিকে অস্থিতিশীল করতে চাইছে। এ পর্যন্ত তাদের হামলায় নোয়াখালীতে ১ জন ও ফরিদপুরে ১ প্রাণ হারিয়েছে। তারা দু’জনই আওয়ামী লীগের কর্মী।

দেশে আইন শৃঙ্খলা অবনতির জন্য একমাত্র ঐক্যফ্রন্টই দায়ী। তারা পল্টনে পুলিশের উপর হামলা করে এ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের উদ্বোধন করেছেন। তারা নিজেরা নিজেদের সঙ্গে গণ্ডগোল করে নিউজ তৈরি করতে চাইছে। নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে বিএনপির অভিযোগের ব্যাপারে তিনি বলেন, এসব অভিযোগ অসহায়ের সংলাপ।

এসসয় মন্ত্রী আরো বলেন, দাগনভুঞাঁ থেকে চৌধুরী হাট পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্ত করনের কাজটি দীর্ঘদিন পরে হলেও সুগম হয়েছে। ইতোমধ্যে রাস্তা প্রশস্তকরণে জায়াগার মালিকদের ক্ষতিপূরণ বাবদ ১০ কোটি টাকা দিয়েছে সড়ক ও জনপদ বিভাগ।

নির্বাচনী আচরণ বিধির ব্যাপারে তিনি বলেন, আমি নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে কথা বলেছি। নির্বাচন কমিশন বলেছে- কোনো কাজের উদ্বোধন করা করা যাবেনা, পরিদর্শন করা যাবে। আমি একটি চলমান কাজের উদ্বোধন করেছি।

দলের পদ-পদবীতে থাকা বিদ্রোহী প্রার্থীর ব্যাপারে তিনি বলেন, সময় হলে সব দেখবেন। আমাদের একটা নির্ধারিত সময় রয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন, দাগনভুঞাঁ উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সভাপতি দিদারুল কবির রতনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মী। -ডেস্ক