(দিনাজপুর২৪.কম) হাত-পায়ে গাছের শিকড় জন্মানো এক শিশুর সন্ধান মিলেছে ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জ উপজেলায়। জন্মের তিন মাস পর থেকেই এই রোগ দেখা দেয় তার শরীরে। বয়স সাত বছর হয়ে গেলেও তাকে সুস্থ করতে পারেননি স্থানীয় চিকিৎসকরা। অল্প বয়সেই শেষ হয়ে যেতে বসেছে শিশুটির জীবন। আক্রান্ত রিপন রায় উপজেলার কেটগাঁও গ্রামের মহেন্দ্র রায়ের ছেলে। আর্থিক অভাবের কারণে উন্নত চিকিৎসা করতে না পারায় অসুখটি দিনকে  দিন বেড়েই চলেছে। কেটগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্র রিপন তিন ভাই-বোনের মধ্যে সবার ছোট। অসুখের কারণে দলছুট হয়ে পড়েছে শিশুটি। শারীরিক অসুস্থতার কারণে নিয়মিত স্কুলও যেতে পারছে না রিপন। রিপন রায় বলে, আমার চলাফেরা করতে খুবই সমস্যা হয়। নিজে নিজে গোসল করতে পারি না। হাত দিয়ে ভাত খেতে পারি না। বন্ধুদের সঙ্গে খেলতে ও নিয়মিত স্কুলে যেতে পারি না। রিপনের মা গোলাপি রাণী বলেন, স্থানীয় ডাক্তার দেখাইছি, কিন্তু  সুস্থ হওয়ার কোনো নাম নাই। ডাক্তার বলছে ঢাকা বা ভারত নিতে। কিন্তু আমাদেরতো টাকাই নাই। কেমনে ঢাকায় নেবো? এ বিষয়ে পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) হুমায়ুন কবির বলেন, ধারণা করা হয় এটা নিউরন সংক্রান্ত রোগ। এই জাতীয় রোগীর হাত-পা গাছের শেকড়ের মতো হয়। এই রোগটা আগে ছিল না। গবেষকরা এ রোগের কারণ জানতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো কারণ জানা যায়নি।