-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) মুমিনুল হক। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। তার নেতৃত্বেই হারের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে জয়ের ধারায় ফিরলো বাংলাদেশ। পেলো ইনিংস ব্যবধানে জয়। অধিনায়ক হিসেবে প্রথম সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে এই জয়ে অবদান রেখেছেন তিনি। অথচ একটা সময় অবহেলিত ছিলেন এই টেস্ট স্পেশালিস্ট।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ২৩৪ বলে ১৩২ রানের অনবদ্য ইনিংস খেলেন মুমিনুল। ১৪টি বাউন্ডারি দিয়ে এই ইনিংস সাজান। প্রতিপক্ষের সাথে লড়াই করার ভীত গড়ে দেন তিনি। সে সময় তার যোগ্য সঙ্গী ছিলেন মুশফিকুর রহিম। তাকে সাথে নিয়েই দলের সংগ্রহ বাড়িয়ে বড় লিড নেয় বাংলাদেশ। ফলে ৪৫০ দিন পর প্রতিক্ষীত জয় পায় টাইগাররা।

সর্বশেষ ২০১৮ সালে ২ ডিসেম্বর ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। এরপর ছয়টি টেস্টে হেরেছে তারা।

গত বছর মার্চে নিউজিল্যান্ড সফরে দুই ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয় বাংলাদেশ। এরপর চট্টগ্রামে সফরকারী আফগানিস্তানের কাছে বড় ধরণের লজ্জায় ডুবে। ২২৪ রানের বিশাল ব্যবধানে হারে বাংলাদেশ।

নভেম্বরে ভারত সফরে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজেও হোয়াটওয়াশ হয়ে ফিরে টাইগাররা। এরপর পাকিস্তান সফরে গিয়ে সিরিজের প্রথম টেস্ট ম্যাচেও হারে।

এই হারের বৃত্ত থেকে অবশেষে বের হয়েছে বাংলাদেশ। পেয়েছে জয়। এই জয়ে আত্মবিশ্বাস বেড়েছে টাইগারদের। এমনটাই জানিয়েছেন অধিনায়ক মুমিনুল।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘আমাদের ভালো খেলা খুব প্রয়োজন। কারণ এই ধরণের জয়ে আত্মবিশ্বাস বাড়ে।’

ম্যাচজয়ের নায়ক তরুণ নাঈম হাসানের প্রশংসা করে তিনি বলেন, ‘সে দারুণ খেলেছে।’

পরে দলের অন্যদেরও প্রশংসা করেন মুমিনুল। বলেন, ‘শান্ত, তামিম, লিটনও ভালো খেলেছে। আসলে সবাই-ই ভালো খেলেছে। এই জয়ে আমি খুব খুশী। -ডেস্ক