(দিনাজপুর২৪.কম) জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলায় একটি আদিবাসী পরিবারে শ্বশুর বাড়ির চারজনকে কুপিয়ে হত্যার পর ঘাতক জামাইকে আটক করা হয়েছে।

 স্ত্রীর পরোকিয়ার জেরে শনিবার ভোররাতে উপজেলার ভিমপুর গ্রামের পালপাড়ায় সুমন হেমরন (৩২) নামের ওই ব্যক্তি এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
 নিহতরা হলেন- সুমনের শাশুড়ি সন্ধ্যা রানী মারান্ডী (৪৫), শ্যালিকা পেরেজা মারান্ডী (২০), সন্তান সানী এমরান (৬) এবং ফুপা শ্বশুর মার্কেল (৫০)। এসময় স্বামীর চাপাতির কোপে গুরুতর আহত হয়েছেন সিলভিয়া (২৬)। তাকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে জয়পুরহাট জেলা হাসপাতাল ও পরে বগুড়া শহীদ জিয়া মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।
 পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু হেনা মোস্তফা কালাম জানান, পুলিশ লাশ চারটি ময়না তদন্তের জন্য জয়পুরহাট হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। একজনকে আটক করা হয়েছে।
 ঘাতক সুমনের বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে, ২০০৭ সালে সিলভিয়ার সাথে বিয়ে হয় সুমনের। তারপর থেকে সে ঘরজামাই থাকতো। পরে তার স্ত্রী অন্যের সাথে পরোকীয়ার সম্পর্ক করছে বলে সন্দেহ করতো সুমন। বিষয়টি সে সিলভিয়ার পরিবারকে কয়েকবার জানিয়েছ। এই ক্ষোভের জেরেই শনিবার ভোররাত পৌনে ৪টার দিকে সুমন এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটায় বলে সে পুুলিশকে জানিয়েছে।
 হত্যাকাণ্ডের পর এলাকাবাসী ঘাতক সুমনকে ঘরের মধ্যে আটকে পুলিশে খবর দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে লাশ উদ্ধার করে এবং ঘাতককে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

(ডেস্ক)