-পুরনো ছবি

স্টাফ রিপোর্টার (দিনাজপুর২৪.কম) সারাদেশের ন্যায় দিনাজপুরেও হু হু করে বেড়েই চলেছে করোনা রোগী সংক্রমনের সংখ্যা। সুধী মহল বলছেন কিছু বেসরকারি ব্যাংকের কর্মচারী এবং এনজিও কর্মীদের কারণে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে দিনাজপুর সদর সহ পুরো জেলা।
জানা গেছে, দিনাজপুরে বে-সরকারি ব্যাংক এবং এনজিও কর্মীরা বৃহস্পতিবার বিকেলে কিংবা রাতে চলে যাচ্ছেন নাড়ীর টানে নিজ বাড়িতে দেশের বিভিন্ন জেলায়। কেউ বা বাসে, কেউ বা ট্রেনে আবার কেউ নিজস্ব পরিবহন মটর সাইকেলে ফলে করোনা সংক্রমনের ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে দিনাজপুরের মানুষ। এরা রংপুর, নীলফামারী, ঢাকা, রাজশাহী, নারায়নগঞ্জ সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় নিজস্ব বাসায় চলে যাচ্ছে এবং রোববার ভোরে দিনাজপুরে এসে অফিসে যোগদান করছে। ইতোমধ্যে দিনাজপুরে বেশ কয়েকটি ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং এনজিও কর্মী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়াও কিছু ঔষধের রি-প্রেজেন্টটিভরা পিছিয়ে নেই নিজ বাড়িতে ফেরত যাবার। ফলে অনেকটা করোনা ভাইরাস সংক্রমের ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে দিনাজপুরবাসী।
দিনাজপুর সিভিল সার্জন ডা. মো. আব্দুস কুদ্দুছের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সরকারি চাকুরিজীবি এবং বেসরকারি কিছু প্রতিষ্ঠানের লোকজন বিভিন্ন জেলায় যাতায়াত অব্যাহত রেখেছে শুনেছি কিন্তু এটি বন্ধ করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।
গেল কিছুদিন সরকার স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন এবং কিছু বাস চলাচলের জন্য খুলে দিলে এখন নিয়মিতভাবে এ সমস্ত ব্যাংকের চাকুরিজীবী, এনজিও কর্মী এবং বেসরকারি অনেক কোম্পানির লোকজনও নিয়মিতভাবে অন্যত্র নিজ জেলায় যাতায়াত অব্যাহত রেখেছেন।
সুধী মহল মনে করছেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঠিক এই মুহূর্তে কোন কার্যকরী পদক্ষেপ না নিলে দিনাজপুরেও করোনা ভাইরাস সংক্রমের সংখ্যা আরও বাড়বে এবং সেই সাথে বাড়বে লাশের সারি।