jastমুহাম্মদ আবদুল কাহহার  (দিনাজপুর২৪.কম) ঢাকাস্থ ধানমন্ডিতে অবস্থিত ‘জাস্ট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ’ এর উদ্যোগে এলাকার সুধীজন, শিক্ষক, ব্যাংকার, ডক্টর, আইনজীবী, সংগঠক ও অভিভাবকদের নিয়ে সুধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কলেজের নতুন ক্যাম্পাসে (রোড ৬/এ, বাড়ি ৬৯/বি) এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান ও প্রিন্সিপাল জনাব এস.এম. রাশেদুজ্জামান এর সভাপতিত্বে সভার শুরুতে পবিত্র কুরআনুল কারীম থেকে তিলাওয়াত ও তরজমা পেশ করেন শিক্ষক সাংবাদিক ও কলামিস্ট মুহাম্মদ আবদুল কাহহার। এ সময়ে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিশু বিশেষজ্ঞ জনাব ড. আনোয়ারুল আবেদীন।

সভায় বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ পুলিশ ও সেনাবাহিনীর ইংলিশ ল্যাংগুয়েজ প্রশিক্ষক ও স্টেট ইউনিভার্সিটির সহকারি অধ্যাপক জনাব ইয়াসির আহমেদ মিলন, উত্তরা মডেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ মুক্তিযোদ্ধা জনাব ড. ইকবাল আজীম, ইসলামী ব্যাংক ধানমন্ডি শাখার ম্যানেজার জনাব বশির আহমেদ, সুপ্রীম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী জনাব তসলিম উদ্দীন, নাট্যকার জনাব নেছার আহমাদ নান্নু, জনাব ডা. শাহরীয়ার মুনতাজ। এছাড়াও মেহমানদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মাওলানা আবদুল বাতেন, মুহাম্মদ আজাদ আলীসহ অন্যান্য ব্যক্তিবর্গ।

সভায় বক্তারা বলেন, ‘শিক্ষাই জাতীর মেরুদন্ড’ এ কথাটি সঠিক নয়, বরং বলা উচিৎ ‘সু-শিক্ষাই জাতীর মেরুদন্ড’। কেননা সু-শিক্ষার অভাবে শিক্ষাব্যবস্থাসহ গোটা দেশ আজ দুর্নীতির ভাইরাসে আক্রান্ত। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভৌতকাঠামো কিংবা তার অবস্থানের চেয়েও একদল দক্ষ শিক্ষকের বেশি প্রয়োজন।

প্রধান অতিথি তার বক্তৃতায় বলেন, সন্তানদেরকে আদর্শ মানুষ গিসেবে গড়ে তুলতে পিতা-মাতা বা অভিভাবক, আদর্শ শিক্ষক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে যৌথভাবে কাজ করতে হবে। সোহাগ ও শাসন পাশাপাশি রেখে সন্তানদের পরিচালনা করতে হবে। শিক্ষকরা প্রতিটি শ্রেণির সকল শিক্ষার্থীর নাম ধরে কুশল বিনিময় করবেন। তাহলে শিক্ষার্থীরা অমনোযোগী হতে পারবে না । শিক্ষকের প্রতি তাদের শ্রদ্ধা-ভক্তি বহুগুণে বেড়ে যাবে। শাসনের নামে রূঢ় আচরণ থেকে বিরত থেকে মার্জিতভাবে সুনির্দিষ্ট পরামর্শ ও সহযোগীতা করতে চেষ্টা করতে হবে।

সভার সভাপতি ও প্রতিষ্ঠানের প্রিন্সিপাল এস. এম. রাশেদুজ্জামান তার বক্তৃতায় বলেন, সৎ ও দক্ষ নাগরিক হিসেবে সন্তানদের গড়ে তুলতে ২০০৮ সাল থেকে শিক্ষানামক মহাসমুদ্রে ‘জাস্ট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল’ যাত্রা শুরু করেছে। বাংলা ভাষার পাশাপাশি ইংরেজি ভাষায় দক্ষ করে তুলতে জাস্ট পরিবার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। মানবশক্তিকে মানবসম্পদে পরিণত করতে এই প্রতিষ্ঠান অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলছে। সামান্য একটি ফুলকি যেমন বিশাল আগুন জ্বালাতে সাহায্য করে তেমনি এই ছোট্ট প্রতিষ্ঠানটিও মানবতার কল্যাণে বিশাল অবদান রাখতে পারবে বলে আমাদের বিশ্বাস। তিনি আরও বলেন, কোচিং নির্ভর না হয়ে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়মুখী হবে জাস্ট পরিবার এমনটাই মনে করেন। একই সাথে তিনি আরও বলেন, শুধু ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে স্বপ্ন নয় বরং যে স্বপ্ন মানুষকে ঘুমাতে দেয় না সেই স্বপ্ন দেখাতেই কাজ করে যাচ্ছে ‘জাস্ট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল’। সভার শেষে সভাপতি মহোদয় সবার সহযোগিতা কামনা করে সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন। অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালনায় দায়িত্বপালন করেছেন ‘জাস্ট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ’ এর শিক্ষক শফিকুল ইসলাম সজিব ও অন্যান্য সহকর্মীবৃন্দ।