(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব  মির্জা ফখরুল  ইসলাম ৬ মাসের অধিক সময় পর তিনি জামিনে মুক্তি পেলেন। বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমইউ ) চিকিৎসাধীন ছিলন তিনি।মঙ্গলবার ইফতারের কিছু সময় আগে তিনি জামিনে মুক্তি পান। জামিনে মুক্তি পেয়ে তিনি সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন ।  ফখরুলকে দেওয়া হাইকোর্টের জামিন আদেশ সোমবার দিন বাহল রাখেন আপিল বিভাগ। সে মোতাবেক ৬ সাপ্তাহের জামিন পেলন তিনি। এই সময়ের মধ্য যদি তিনি চান তাহলে উন্নত চিকিৎকাস জন্য বাহিরে যেতে পারবেন। মির্জা ফখরুল বলেন ,‘ আমি দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানাই । আমার অন্ত্যরীন অসুস্থতার খবর তুলে ধরেছেন । আমার এই ৬ মাসে প্রায় ১২ কেজী ওজন কমেছে । কিছুদিনের জন্য হলে ও আমি জামিনে মুক্তি পেয়েছি। চিকিৎসা নিয়ে আবার আমি দেশে ফিরে আসবো।’গত ৬ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে আটক হন মির্জা ফখরুল । এরপর গাড়ি পোড়ানো , ভাংচুর , ও নাশকতার অভিযোগে রাজধানীর পল্টন ও মতিঝিল থানায় দায়ের সাতটি মামলায় তাকে আটক করা হয়। সরকার পতনের নামে আন্দোলনের নেমে ব্যর্থ হয়ে এখন দলটি দলটি পূন গঠনে মোনযোগী হয়েছে। করাগার তেকে মুক্তি পেলে মির্জা ফখরুল পূনাঙ্গ সচিব হচ্ছে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। ২০১১ সালে ১৬মার্চ খোন্দকার দেলোযার হোসেন মৃত্যুর থেকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ছিলেন মির্জা ফকরুল ।মির্জা ফখরুলের পরিবার ও আইনজীবী বলেন , তার হদযন্তে চারটি ব্লক রয়েছে। এবং তিনটিতে রিং বসানো হয়েছে।  এখন তার গলার ধমনিতে নার্ভ প্রতিবন্ধকাতা রয়েছে। এবং প্রায় ৮০ বাগ ব্লক হয়ে গেছে। শুনা যাচ্ছে তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুর অথবাযুক্তরাষ্ট যেতে পারেন।(ডেস্ক)