(দিনাজপুর২৪.কম) বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, জাতিসংঘ থেকে রোহিঙ্গাদের জন্য কিছুই আনতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘ সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অর্জন শূন্য।

শনিবার (৭ অক্টোবর) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালি, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ প্রমুখ।

প্রধানমন্ত্রীকে ‘মাদার অফ হিউম্যানিটি’ নামে অভিহিত করা ও তার অর্জন নিয়ে বিএনপির মতামত জানতে চাইলে রিজভী বলেন, ‘রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে প্রথমে কোনও আগ্রহই দেখায়নি সরকার। এর পর জাতিসংঘ থেকেও রোহিঙ্গাদের জন্য কিছুই আনতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী। এমনকি নিজেদের পাশের দেশকেও পক্ষে নিতে পারেননি। তার (প্রধানমন্ত্রী) কোনও অর্জনই নেই।’

তিনি বলেন, “যে দেশে গণতন্ত্র নেই, নাগরিক অধিকার নেই, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নেই, যেখানে হাজার হাজার মানুষ গুম হয়, হত্যা করা হয়, সেখানে কিসের হিউম্যানিটি? প্রধানমন্ত্রীকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ নয় ‘মাদার অব ক্রুয়েলিটি’ বলা উচিত।”

প্রধানমন্ত্রীর গণসংবর্ধনা নিয়ে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘ঢাকঢোল পিটিয়ে তাকে গণসংবর্ধনা দেয়ার থেকে এই টাকা রোহিঙ্গাদের মাঝে বিতরণ করলেও তো হতো।’

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী গতকাল (শুক্রবার) বলেছেন ‘কোনও সমস্যাই দেশের অগ্রগতি থামাতে পারবে না’। এ কথা তো তিনি বলবেনই। কারণ, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, স্বাধীন মত প্রকাশের স্বাধীনতা, বিরোধী দলের চিন্তা ও বিশ্বাসসহ গণতন্ত্রই হচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর মনঃপীড়া ও তাঁর ক্ষমতায় টিকে থাকার একমাত্র সমস্যা।”

রিজভী বলেন, নানা শর্তের বেড়াজালে ভারতের সঙ্গে তৃতীয় ঋণের ৪৫০ কোটি ডলারের (৩৬ হাজার কোটি টাকা) চৃক্তি করেছে সরকার। ভারত থেকে লাইন অব ক্রেডিটের (এলওসি) আওতায় নেয়া আগের দুটি ঋণের (তিনশ’ কোটি ডলার) সার্বিক কার্যক্রম সঠিকভাবে বিশ্লেষণ করে থাকলে পুনরায় একই ধরনের ঋণ নেয়ার প্রয়োজন ছিল না।

তিনি বলেন, আগের দুটি প্রকল্প এখনও বাস্তবায়ন করতে পারেনি সরকার। ২০১৬ সালে চুক্তি হওয়া দ্বিতীয় ঋণের ২০০ কোটি ডলার এখনও ছাড় হয়নি। আর প্রথম ঋণের ১০০ কোটি ডলারের মধ্যে সাত বছরে ছাড় হয়েছে মাত্র ৩৭ কোটি ৬০ লাখ ডলার। সুতরাং ভারতের সঙ্গে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে আবারও কঠিন শর্তে যে ঋণ চুক্তি করা হয়েছে তা দেশের জন্য অমঙ্গলজনক। -ডেস্ক