মো. জাকির হোসেন (দিনাজপুর২৪.কম) প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল, যানবাহন ও আবাসন ব্যবস্থা না থাকায় কাঙ্খিত সেবা প্রদানে বাঁধার শিকার হচ্ছেন সৈয়দপুর থানা পুলিশ। ফলে দৈনন্দিন জীবনে জানমাল রক্ষায় পুলিশী সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। জননিরাপত্তার স্বার্থে প্রয়োজনীয় জনবল, যানবাহন ও আবাসন বরাদ্দ করা জরুরী বলে সচেতন মহল দাবী করেন।   জানা গেছে, জেলার অন্যতম বাণিজ্যিক ও ঘিঞ্জি শহর সৈয়দপুরে পৌর ১৫টি ওয়ার্ড ও পাঁচটি ইউনিয়ন মিলে বিপুল জনগোষ্ঠির বসবাস। কিন্তু এই জনগোষ্ঠির বিপরীতে সৈয়দপুর থানায় রয়েছেন একজন অফিসার্স ইনচার্জ, একজন অফিসার্স ইনচার্জ (তদন্ত) ৬ জন সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই), ৭ জন এ্যাসিস্টেন্ট সাব-ইন্সপেক্টর (এএসআই), একজন নারী এ্যাসিস্টেন্ট সাব-ইন্সপেক্টর (এএসআই),  ২জন নারী কনসটেবল ও ৩২জন পুরুষ কনসটেবল। যা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।  অন্যদিকে, ভিআইপি প্রটোকল, ওয়ারেন্ট তামিল ও অফিসার্স ইনচার্জের কাজের জন্য কমপক্ষে তিনটি পিকআপ ভ্যান প্রয়োজন হলেও সৈয়দপুর থানায় রয়েছে মাত্র একটি। ফলে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও পুলিশের অনেক কাজ বিলম্বিত হচ্ছে। যার প্রভাব পড়ছে সাধারণ মানুষের ওপর।
এছাড়াও সৈয়দপুর থানায় আবাসন সংকট রয়েছে। এ থানায় ৬ জন সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) ও ৭ জন এ্যাসিস্টেন্ট সাব-ইন্সপেক্টর (এএসআই) কর্মরত থাকলেও পরিবার-পরিজন নিয়ে বসবাসের জন্য এসআইয়ের জন্য একটি এবং এএসআইয়ের জন্য মাত্র দুটি কোয়ার্টার রয়েছে। ফলে পরিবার-পরিজন নিয়ে থানার বাইরে বসবাস করতে হচ্ছে। এতে একদিকে যেমন বাড়তি অর্থ ব্যয় হচ্ছে তেমনি নিরাপত্তার বিষয়টিও রয়েছে।
সূত্র জানায়, উপজেলা এলাকায় দৈনন্দিন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা, ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী গ্রেফতার, সাধারণ ডায়েরী-এৎাহার-মামলা গ্রহণ, সরেজমিনে মামলার তদন্ত, ভিআইপি প্রটোকল প্রদান, যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশকে সহায়তা প্রদান, পরীক্ষার হলে নিরাপত্তা রক্ষা, সামাজিক-রাজনৈতিক কর্মকান্ডে নিরাপত্তা প্রদান, চলমান মামলার নথি-পত্র হালনাগাদকরণ, ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা, জেল-হাজতে আসামী প্রেরণ, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা প্রদান, অপরাধ দমনসহ নানাবিধ কাজে সম্পৃক্ত থাকতে হয় পুলিশ প্রশাসনকে। সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও সৈয়দপুর থানা পুলিশ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।
এ বিষয়ে সৈয়দপুর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মোঃ ইসমাঈল হোসেন বলেন, উল্লেখিত সমস্যা থাকার পরও আমরা দৈনন্দিন কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। তবে প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল, যানবাহন ও কোয়ার্টার ব্যবস্থা করা হলে পুলিশী সেবার মান আরও বৃদ্ধি পাবে বলে তিনি জানান।
মুঠোফোনে কথা হয় জেলার নবাগত পুলিশ সুপার মোঃ জাকির হোসেন খানের সাথে। তিনি বলেন, জনবল বাড়ানোর বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার ইতোমধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছে। সৈয়দপুর থানায় পিকআপ ভ্যান প্রয়োজন স্বীকার করে তিনি বলেন, বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে, শিগগির পিকআপ ভ্যানের ব্যবস্থা হবে। সৈয়দপুর থানার কোয়ার্টার স্বল্পতার বিষয়টি তিনি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন বলে জানান।