(দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরে ক্ষুদে পদার্থ বিজ্ঞানীদের উৎসব মুখর আসরের মধ্য দিয়ে ৫ম পদার্থ বিজ্ঞান উৎসব সম্পন্ন হয়েছে। দিনাজপুরে ৩৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৮৪৩ জন ক্ষুদে বিজ্ঞানী অংশগ্রহন করে। জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সোনার বাংলা গোড়ার কারিগর হিসেবে ক্ষুদে বিজ্ঞাণীদের গড়ে তোলার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, জ্ঞান বিজ্ঞানে তথ্য প্রযুক্তির আদান প্রদানে ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের বিশ্ব মানের ছাত্র-ছাত্রী হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। গ্লোবাল ভিলেজের চ্যালেন্স মোকাবেলায় ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের আরো জ্ঞান-বিজ্ঞানে মনোযোগী হতে হবে। বর্তমান সরকার অপটিক্যাল ফাইবার গ্রামাঞ্চলে জনগনের দৌড়গড়ায় পৌছে দিতে ১ কোটি কম্পিউটার ল্যাব সংযোগ দিয়েছে। গ্রামাঞ্চলের মানুষকে আধুনিক প্রযুক্তির সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার উপর গুরুত্ব দিয়েছে। জ্ঞান-বিজ্ঞানে দক্ষ হতে না পারলে বর্তমান বিশ্বে ছাত্র-ছাত্রীদের কোন মুল্য নেই।
৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার দিনাজপুর সায়েন্স একাডেমীর আয়োজনে জিলা স্কুল অডিটোরিয়ামে দিনাজপুর সায়েন্স একাডেমীর সভাপতি প্রফেসর বিকাশ চন্দ্র সরকারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন দিনাজপুর সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ আবু বক্কর সিদ্দীক, দিনাজপুর আনুবিক শক্তি কমিশনের পরিচালক ডাঃ বিকে বস, জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আখতারা পারভীন প্রমুখ। সঞ্চালনায় ছিলেন অনুষ্ঠানের কো-অর্ডিনেটর ও একাডেমীর ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রফেসর জিয়াউর হক সিজার। সার্বিক তত্তাবধানে প্রথম আলোর দিনাজপুর প্রতিনিধ আসাদুল্লাহ সরকার। অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় পর্বে অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে বিজয়ীদের পুরস্কৃত করা হয়। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, বিশেষ অতিথি দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম, পুলিশ সুপার মোঃ রুহুল আমীন উপস্থিত ছিলেন। ৭ম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ৩টি গ্রুপের প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় দিনাজপুর জিলা স্কুল, সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, আমেনা বাকী, হলি ল্যান্ড কলেজ, চেরাডাঙ্গী স্কুল, শিকদার গার্লস স্কুল, চেহেলগাজী শিক্ষা নিকেতন, ইকবাল হাই স্কুল, পুলিশ লাইন স্কুল, কলেজিয়েট গার্লস স্কুল, ল্যাবরেটোরি স্কুল ও বিরল, চিরিরবন্দরসহ ৩৫টি স্কুল কলেজের ৮৪৩জন ক্ষুদে বিজ্ঞানী অংশ গ্রহন করে। সমাপনি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হুইপ বলেন, চর্চা, প্রশিক্ষন ও প্রতিযোগিতার বিকল্প নেই। জ্ঞান বিজ্ঞানের প্রতিভাকে বিকাশ ঘটিয়ে তথ্য প্রযুক্তি এ যুগে নিজেদেরকে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। অনুষ্ঠান শেষে ক্ষুদে বিজ্ঞানীদের এক মিলন মেলায় পরিনত হয়।