ছাতক গ্যাসক্ষেত্রে বিস্ফোরণে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে নাইকোকে

(দিনাজপুর২৪.কম)আন্তর্জাতিক বিনিয়োগ বিরোধ নিষ্পত্তি সংক্রান্ত সালিসি আদালত (ইকসিড) এর ট্রাইব্যুনাল ২০০৫ সালের ৭ জানুয়ারি সুনামগঞ্জের ছাতক গ্যাসক্ষেত্রে নাইকো রিসোর্স (নাইকো) কর্তৃক খনন কার্যক্রম পরিচালনার সময় বিস্ফোরণের জন্য নাইকোকে অভিযুক্ত করে রায় প্রদান করেছেন।

আজ রবিবার এক অনলাইন সাংবাদিক সম্মেলনে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর উপস্থিতিতে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি এ রায় প্রদান করা হয় বলে জানায় মন্ত্রণালয়।

রায় অনুযায়ী, নাইকো বাংলাদেশকে জ্বালানি ক্ষতিপূরণ দিতে বাধ্য থাকবে। ক্ষতিপূরণের পরিমাণ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। এ ছাড়া স্বাস্থ্য ও পরিবেশগত ক্ষতিপূরণ দিতে হবে নাইকোকে। সেই ক্ষতি মূল্যায়নে জরিপ কাজ পরিচালনা করছে বাংলাদেশ সরকার।

২০০৩ সালে নাইকো-বাপেক্স যৌথ উদ্যোগে একটি চুক্তির মাধ্যমে ছাতক গ্যাসক্ষেত্রটি উন্নয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত হয় নাইকো। কূপ খনন প্রক্রিয়া শুরু করলে গ্যাসক্ষেত্রটিতে মারাত্মক বিস্ফোরণের সূত্রপাত হয়, যা ঐ গ্যাসক্ষেত্র ও তার সন্নিহিত এলাকায় পরিবেশ ও জনজীবনের ব্যাপক ক্ষতি করে। বিস্ফোরণটি নিয়ন্ত্রণে এনে ক্ষতি কমিয়ে আনার চেষ্টা করলে দ্বিতীয়বারের মত গ্যাসক্ষেত্রটিতে বিস্ফোরণ ঘটে।

অনলাইন সাংবাদিক সম্মেলনে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়

নাইকো ২০১০ সনে ছাতক গ্যাসক্ষেত্র বিস্ফোরণের ঘটনায় তারা দায়ী নয় মর্মে ঘোষণা চেয়ে ইকসিডে একটি সালিসি মোকদ্দমা দায়ের করে। ২০১৬ সনে বাপেক্স আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের দিয়ে গঠিত একটি কমিটির মাধ্যমে একটি সমীক্ষা পরিচালনা করেন। বিশেষজ্ঞদের অভিমত অনুসারে ২৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে নাইকোর কাছে বাপেক্স কে ১১৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং বাংলাদেশ সরকারকে ৮৯৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ চেয়ে ইকসিডে দাবি উত্থাপন করা হয়।

দশ বছরের সুদীর্ঘ জটিল আইনি প্রক্রিয়া শেষে ইকসিড ট্রাইব্যুনাল ২০০৫ সনের বিস্ফোরণের জন্য যৌথ উদ্যোগ চুক্তির অধীন শর্তসমূহ ভঙ্গের জন্য নাইকোকে দায়ী করে তাদের অভিযুক্ত করে চলতি বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি এক যুগান্তকারী রায় প্রদান করেন। নাইকো দক্ষতার সাথে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করতে এবং পেট্রোলিয়াম শিল্পের আন্তর্জাতিক মানের সাথে সামঞ্জস্যতা বজায় রাখতে ব্যর্থ হওয়ার কারণেই এই বিস্ফোরণের ঘটনাটি ঘটে বলে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনাল রায় প্রদান করেছেন।

নাইকোকে অভিযুক্ত করে উক্ত ঘটনা থেকে সরাসরি উদ্ভূত যাবতীয় ক্ষয়ক্ষতির জন্য বাপেক্সকে ক্ষতিপূরণ দিতে ট্রাইব্যুনাল আদেশ প্রদান করেছেন। সেইসাথে উক্ত ঘটনায় ছাতক গ্যাসক্ষেত্র থেকে নির্গত গ্যাস এর জন্যও বাপেক্সকে ক্ষতিপূরণ দিতে নাইকোর প্রতি ট্রাইব্যুনাল নির্দেশ প্রদান করেন। মোকদ্দমার পরবর্তী ধাপে ট্রাইব্যুনাল অন্যান্য ক্ষয়ক্ষতি এবং এর পরিমাণ নির্ধারণ বিষয়ে দিক নির্দেশনা প্রদান করবেন।

অনলাইন সাংবাদিক সম্মেলনে জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এবং জ্বালানি সচিব আনিছুর রহমান বক্তব্য রাখেন।-ডেস্ক