(দিনাজপুর২৪.কম) একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভোটযুদ্ধে নামার চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা সম্পন্ন করেছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। দুটি দলই জোটগতভাবে প্রার্থীদের চূড়ান্ত চিঠি দিয়েছে। জোটের শরিকসহ ২৫৮টি আসনে থাকবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা, আর ৪২টি আসনে থাকবে লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থীরা। অন্যদিকে, ৯৪টি আসনে জোটের শরিক দলগুলোর প্রার্থীকে চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। তবে ভোটযুদ্ধে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাকলেও এখনো অনিশ্চয়তা কাটেনি বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার। তার প্রার্থিতা নিয়ে আইনি লড়াইয়ের শেষ ধাপ পর্যন্ত দেখবে বিএনপি। আর এ কারণে এখনো তার আসনগুলোতে কাউকে চূড়ান্ত করা হয়নি।

২৪০ আসনে আ.লীগ শরিকরা ৬০ 
ভোটযুদ্ধে নামার চূড়ান্ত প্রস্তুতি হিসেবে দল ও শরিকদের সঙ্গে আসন বণ্টন সম্পন্ন করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। শরিকদের আসনগুলোতে চূড়ান্ত সমঝোতা হয়েছে। যার কারণে প্রাপ্ত আসনেই সন্তুষ্ট ১৪ দলের শরিক ৬ দলসহ নির্বাচনি জোটের শরিকরা। তবে জাতীয় পার্টির সঙ্গে কয়েকটি আসনে এখনো চূড়ান্ত সমঝোতা হয়নি। ওইসব আসনগুলো উন্মুক্ত রাখা হতে পারে বলে সূত্র জানিয়েছে।এদিকে, গতকালও নিজ দল ও জোটের শরিকদের প্রার্থীদের চূড়ান্ত চিঠি দিয়েছে আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয় হতে চিঠি তুলে দেয়া হয়। আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হয়েছে। দুজন করে দেয়া আসনেও একজনকে চূড়ান্ত চিঠি দেয়া হয়েছে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগসহ জোটের শরিকরা নৌকা প্রতীকে অংশ নিবে। জাতীয় পার্টি অংশ নেবে লাঙ্গল প্রতীকে।নৌকা প্রতীক থাকছে না ৪২ আসনে : মহাজোটের হয়ে ৪২ আসনে লড়বে জাতীয় পার্টি। জনমত যাচাই-বাছাই শেষে ৪২টি আসনে জাতীয় পার্টিকে ছাড় দিয়েছে আওয়ামী লীগ। যার কারণে ওইসব আসনে নৌকা প্রতীক থাকবে না। আসনগুলোর মধ্যে রয়েছে রংপুর-১ মশিউর রহমান রাঙ্গা, রংপুর-৩ হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, নীলফামারী-৩ কাজী ফারুক কাদের, নীলফামারী-৪ শওকত চৌধুরী, কুড়িগ্রাম-১ আক্কাস আলী, কুড়িগ্রাম-২ পনির উদ্দিন আহমেদ, কুড়িগ্রাম-৪ আসাফউদ্দৌলা তাজ, লালমনিরহাট-৩ জিএম কাদের, গাইবান্ধা-১ শামীম হায়দার পাটোয়ারী, বগুড়া-২ শফিকুল ইসলাম জিন্নাহ, বগুড়া-৩ নুরুল ইসলাম তালুকদার, বগুড়া-৬ নুরুল ইসলাম ওমর, বগুড়া-৭ আলতাফ আলী, ঢাকা-৪ সৈয়দ আবুল হোসেন বাবলা, ঢাকা-৬ কাজী ফিরোজ রশীদ, নারায়ণগঞ্জ-৩ লিয়াকত হোসেন খোকা, নারায়ণগঞ্জ-৫ একেএম সেলিম ওসমান, কিশোরগঞ্জ-৩ মুজিবুল হক চুন্নু, বরিশাল-২ চিত্রনায়ক সোহেল রানা, বরিশাল-৬ নাসরিন জাহান রত্না, পিরোজপুর-৩ রুস্তম আলী ফরাজী, ময়মনসিংহ-৪ বেগম রওশন এরশাদ, ময়মনসিংহ-৮ ফখরুল ইমাম, সিলেট-২ ইয়াহহিয়া চৌধুরী, সুনামগঞ্জ-৪ পীর ফজলুর রহমান মেসবাহ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ রেজাউল ইসলাম ভুঁইয়া, লক্ষ্মীপুর-২ এমএ নোমান, ফেনী-৩ মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৫ আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, কুমিল্লা-৮ নুরুল ইসলাম মিলন এবং চট্টগ্রাম-১৬ মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী।এছাড়া জাতীয় পার্টির প্রত্যাশিত আসনের মধ্যে রয়েছে- হবিগঞ্জ-১, পটুয়াখালী-১, দিনাজপুর-৬, রংপুর-২, ৪, ৫, গাইবান্ধা ৩ ও ৫ এবং কুড়িগ্রাম-৩. রাজশাহী-৫, নাটোর-১, ঢাকা-১৭, ময়মনসিংহ-৫, ৭ , খুলনা-১, সাতক্ষীরা-২ ও ঢাকা-১। এসব আসনের ব্যাপারে এখনো সমঝোতা হয়নি। তবে কয়েকটি আসন উন্মুক্ত রাখা হতে পারে আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির সূত্র নিশ্চিত করেছে। জোটের আসন বণ্টন নিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, প্রত্যাশিত অধিকাংশ আসনেই সমঝোতা হয়েছে। এখন কিছু প্রত্যাশা রয়েছে। আশা করি আমাদের ৫০টি আসন দেয়া হবে।নৌকা প্রতীকে শরিক নেতারা লড়বে যেখানে : ১৪ দল ও নির্বাচনি জোটের শরিকদের আসন চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ। এর মধ্যে- ওয়ার্কার্স পার্টি ৫, বিকল্পধারা ৪, জাসদ (ইনু) ৩, জাসদ ( আম্বিয়া) ১, জেপি ১, তরিকত ২। ইসলামিক ফ্রন্ট ও জাকের পার্টিকে ১টি করে আসন দেয়া হলেও চূড়ান্ত হয়নি। আরও কয়েকটি আসনে ইসলামিগুলোকে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে। ওয়ার্কার্স পার্টির ৫ আসনের মধ্যে- ঢাকা-৮ রাশেদ খান মেনন, রাজশাহী-২ ফজলে হোসেন বাদশা, ঠাকুরগাঁও-৩ ইয়াসিন আলী, সাতক্ষীরা-১ মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, বরিশাল-৩ শেখ টিপু সুলতান। জাসদ (ইনু) আসন ৩টি হলো- কুষ্টিয়া-২ হাসানুল হক ইনু, ফেনী-১ শিরীন আখতার, বগুড়া-৪ একেএম রেজাউল করিম তানসেন। জাসদ (আম্বিয়া) অংশে চট্টগ্রাম-৮ মইনুদ্দিন খান বাদলকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। নড়াইল-১ শরীফ নুরুল আম্বিয়াকে দেয়ার কথা ভাবা হলেও তা দেয়নি। জাতীয় পার্টি (জেপি) পেয়েছে দুটি আসন। এগুলো হলো- পিরোজপুর-২ আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, কুড়িগ্রাম-৪ রুহুল আমিন। ইসলামি দলসমূহকে ৪টি আসনে দেয়া হয়েছে। তবে আরও একটি বাড়তে পারে। এর মধ্যে- তরীকত ফেডারেশন পেয়েছে দুটি। চট্টগ্রাম-২ নজিবুল বশর মাইজভা-ারী, লক্ষ্মীপুর-১ আনোয়ার হোসেন। ইসলামিক ফ্রন্ট ১টি চাঁদপুর-৫ সৈয়দ বাহাদুর শাহ মোজাদ্দেদী, জাকের পার্টি ১টি হলো ফরিদপুর-২ মোস্তফা আমীর ফয়সাল মোজাদ্দেদীকে চিঠি দেয়া হয়েছে। তবে তাদের দুজনের চূড়ান্ত চিঠি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। সাবেক রাষ্ট্রপতি একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্টকে ৩টি আসন দেয়া হচ্ছে। এগুলো হলো- মুন্সীগঞ্জ-১ মাহী বি চৌধুরী, লক্ষ্মীপুর-৪ আব্দুল মান্নান, মৌলভীবাজার-২ এফএম শাহীন। এছাড়াও নীলফামারী-১ জেবেল রহমান গানি, সাতক্ষীরা-৪ এইচএম গোলাম রেজা, সিলেট-৬ শমসের মবিন চৌধুরীর জন্য নিতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে যুক্তফ্রন্ট। এদিকে, ১৪টি আসনে নিজ দলের মনোনয়ন দেয়া দুজন প্রার্থী হতে ১ জনকে চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ। ওইসব আসনে একক প্রার্থীদের চূড়ান্ত চিঠি দেয়া হয়েছে। আসনগুলো হলো- কিশোরগঞ্জ-১ জনপ্রশাসনমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ঢাকা-৫ হাবিবুর রহমান মোল্যা, ঢাকা-৭ আসনে হাজি মো. সেলিম, ঢাকা-১৭ আসনের অভিনেতা আকবর হাসান পাঠান ফারুক, বরগুনা-১ আসনে বর্তমান সাংসদ ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, টাঙ্গাইল-২ আসনে প্রবাসী ব্যবসায়ী তানভীর হাসান (ছোট মনির), জামালপুর-১ আসনে সাবেক তথ্যমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ, জামালপুর-৫ মোজাফফর হোসেন, লক্ষ্মীপুর-৩ আসনে একেএম শাহজাহান কামাল, চাঁদপুর-১ সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর, চাঁদপুর-২ সাবেক ছাত্রনেতা নুরুল আমিন রুহুল, এ আসনে বাদ পড়েছেন ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনামন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, চাঁদপুর-৪ জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুল ইসলাম, নড়াইল-১ কবিরুল হক মুক্তি, বাদ পড়েছেন জাসদের একাংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া। এছাড়া আওয়ামী লীগের পূর্বঘোষিত এবং বৈধ প্রার্থীদের চূড়ান্ত চিঠিও দেয়া হয়েছে। তারা হলেন পঞ্চগড়-১ মাজহারুল হক প্রধান, পঞ্চগড়-২ নুরুল ইসলাম সুজন, ঠাকুরগাঁও-১ রমেশ চন্দ্র সেন, ঠাকুরগাঁও-২ দবিরুল ইসলাম, দিনাজপুর-১ মনোরঞ্জন শীল গোপাল, দিনাজপুর-২ খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, দিনাজপুর-৩ ইকবালুর রহিম, দিনাজপুর-৪ এইচএম মাহমুদ আলী, দিনাজপুর-৫ মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, দিনাজপুর-৬ শিবলী সাদিক, নীলফামারী-২ আসাদুজ্জান নূর, রংপুর-২ আবুল কালাম মোহাম্মদ আহসানুল হক, রংপুর-৪ টিপু মুনসি, রংপুর-৫ এইচএম আশিকুর রহমান, রংপুর-৬ শিরীন শারমিন চৌধুরী, লালমনিরহাট-১ মোতাহার হোসেন, লালমনিরহাট-২ নুরুজ্জামান মাহমুদ, গাইবান্ধা-২ মাহবুব আরা গিনি, গাইবান্ধা-৩ ইউনুস আলী সরকার, গাইবান্ধা-৪ মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, গাইবান্ধা-৫ ফজলে রাব্বী মিয়া, রাজশাহী-১ ওমর ফারুক চৌধুরী, রাজশাহী-৩ আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-৪ এনামুল হক, রাজশাহী-৫ মনসুর রহমান, রাজশাহী-৬ শাহরিয়ার আলম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ জিয়াউর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আবদুল ওদুদ, নাটোর-১ শহীদুল ইসলাম বকুল, নাটোর-২ শফিকুল ইসলাম শিমুল, নাটোর-৩ জুনাইদ আহমেদ পলক, নাটোর-৪ আবদুল কুদ্দুস, বগুড়া-১ আবদুল মান্নান, বগুড়া-৫ হাবিবুর রহমান, জয়পুরহাট-১ শামসুল আলম দুদু, জয়পুরহাট-২ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, সিরাজগঞ্জ-১ মোহাম্মদ নাসিম, সিরাজগঞ্জ-২ হাবিবে মিল্লাত মুন্না, সিরাজগঞ্জ-৩ আবদুল আজিজ, সিরাজগঞ্জ-৪ তানভীর ইমাম, সিরাজগঞ্জ-৫ আবদুল মোমিন ম-ল, সিরাজগঞ্জ-৬ হাসিবুর রহমান স্বপন, পাবনা-১ শামসুল হক টুকু, পাবনা-২ আহমেদ ফিরোজ কবির, পাবনা-৩ মকবুল হোসেন, পাবনা-৪ শামসুর রহমান শরিফ ডিলু, পাবনা-৫ গোলাম ফারুক খন্দকার প্রিন্স, খুলনা-১ পঞ্চানন বিশ্বাস, খুলনা-২ শেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল, খুলনা-৩ বেগম মুন্নুজান সুফিয়ান, খুলনা-৪ আবদুস সালাম মুর্শেদী, খুলনা-৫ নারায়ণ চন্দ্র চন্দ, খুলনা-৬ আকতারুজ্জামান বাবু, সাতক্ষীরা-২ মীর মোশতাক আহমেদ, সাতক্ষীরা-৩ আফম রুহুল হক, বাগেরহাট-১ শেখ হেলাল উদ্দিন, বাগেরহাট-২ শেখ সারহান নাছের তন্ময়, বাগেরহাট-৩ হাবিবুন নাহার, বাগেরহাট-৪ মোজাম্মেল হোসেন, যশোর-১ শেখ আফিল উদ্দিন, যশোর-২ নাছির উদ্দিন, যশোর-৩ কাজী নাবিল আহমেদ, যশোর-৪ রণজিৎ কুমার রায়, যশোর-৫ স্বপন ভট্টাচার্য, যশোর-৬ ইসমত আরা সাদেক, চুয়াডাঙ্গা-১ সোলায়মান হক জোয়ার্দার ছেলুন, চুয়াডাঙ্গা-২ আলী আজগর টগর, মাগুরা-১ সাইফুজ্জামান শিখর, মাগুরা-২ বীরেন শিকদার, মেহেরপুর-১ ফরহাদ হোসেন দোদুল, মেহেরপুর-২ সহীদুজ্জামান খোকন, নড়াইল-২ মাশরাফি বিন মুর্তজা, নড়াইল-১ কবিরুল হক মুক্তি, কুষ্টিয়া-১ আকম সারোয়ার জাহান, কুষ্টিয়া-৩ মাহবুব উল আলম হানিফ, কুষ্টিয়া-৪ সেলিম আলতাফ জর্জ, বরিশাল-১ আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, বরিশাল-২ শাহে আলম, বরিশাল-৪ পংকজ দেবনাথ, বরিশাল-৫ জাহিদ ফারুক শামীম, বরগুনা-১ ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, বরগুনা-২ শওকত হাচানুর রহমান রিমন, পটুয়াখালী-১ শাহাজান মিয়া, পটুয়াখালী-২ আসম ফিরোজ, পটুয়াখালী-৩ এসএম শাহজাদা, পটুয়াখালী-৪ মহিবুর রহমান মুহিব, ভোলা-১ তোফায়েল আহমেদ, ভোলা-২ আলী আজম মুকুল, ভোলা-৩ নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, ভোলা-৪ আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, ঝালকাঠি-১ বজলুল হক হারুন, ঝালকাঠি-২ আমির হোসেন আমু, পিরোজপুর-১ শম রেজাউল করিম, ঢাকা-১ সালমান এফ রহমান, ঢাকা-২ কামরুল ইসলাম, ঢাকা-৩ নসরুল হামিদ বিপু, ঢাকা-৫ হাবিবুর রহমান মোল্লা, ঢাকা-৭ হাজি মো. সেলিম, ঢাকা-৯ সাবের হোসেন চৌধুরী, ঢাকা-১০ শেখ ফজলে নূর তাপস, ঢাকা-১১ একেএম রহমতউল্লাহ, ঢাকা-১২ আসাদুজ্জামান খান কামাল, ঢাকা-১৩ সাদেক খান, ঢাকা-১৪ আসলামুল হক, ঢাকা-১৫ কামাল আহমেদ মজুমদার, ঢাকা-১৬ ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লা, ঢাকা-১৮ সাহারা খাতুন, ঢাকা-১৯ এনামুর রহমান, ঢাকা-২০ বেনজীর আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ-১ গোলাম দস্তগীর গাজী, নারায়ণগঞ্জ-২ নজরুল ইসলাম বাবু ও নারায়ণগঞ্জ-৪ কেএম শামীম ওসমান, মুন্সীগঞ্জ-২ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, মুন্সীগঞ্জ-৩ মৃণাল কান্তি দাস, গাজীপুর-১ আকম মোজাম্মেল হক, গাজীপুর-২ জাহিদ আহসান রাসেল, গাজীপুর-৩ ইকবাল হোসেন সবুজ, গাজীপুর-৪ সিমিন হোসেন রিমি ও গাজীপুর-৫ মেহের আফরোজ চুমকি, মানিকগঞ্জ-১ এএম নাইমুর রহমান দুর্জয়, মানিকগঞ্জ-৩ জাহিদ মালেক স্বপন, টাঙ্গাইল-১ আবদুর রাজ্জাক, টাঙ্গাইল-২ মশিউজ্জামান রুমেল, টাঙ্গাইল-৩ আতাউর রহমান খান, টাঙ্গাইল-৪ হাসান ইমাম খান, টাঙ্গাইল-৫ ছানোয়ার হোসেন, টাঙ্গাইল-৬ আহসানুল ইসলাম টিটু, টাঙ্গাইল-৭ একাব্বর হোসেন, টাঙ্গাইল-৮ জোয়াহেরুল ইসলাম জোয়াহের, নরসিংদী-১ নজরুল ইসলাম হিরু, নরসিংদী-২ আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলীপ, নরসিংদী-৩ জহিরুল হক ভুঁইয়া মোহন, নরসিংদী-৪ নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, নরসিংদী-৫ রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু, কিশোরগঞ্জ-১ সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ-২ নূর মোহাম্মদ, কিশোরগঞ্জ-৪ রেজওয়ান আহম্মেদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জ-৫ আফজাল হোসেন, কিশোরগঞ্জ-৬ নাজমুল হাসান পাপন, গোপালগঞ্জ-১ ফারুক খান, গোপালগঞ্জ-২ শেখ ফজলুল করিম সেলিম, গোপালগঞ্জ-৩ শেখ হাসিনা, মাদারীপুর-১ নুর-ই আলম চৌধুরী লিটন, মাদারীপুর-২ শাজাহান খান, মাদারীপুর-৩ আবদুস সোবহান গোলাপ, শরীয়তপুর-১ ইকবাল হোসেন অপু, শরীয়তপুর-২ একেএম এনামুল হক শামীম, শরীয়তপুর-৩ নাহিম রাজ্জাক, ফরিদপুর-১ মঞ্জুর হোসেন, ফরিদপুর-২ সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, ফরিদপুর-৩ খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ফরিদপুর-৪ কাজী জাফরউল্লাহ, ময়মনসিংহ-১ জুয়েল আরেং, ময়মনসিংহ-২ শরীফ আহম্মেদ, ময়মনসিংহ-৩ নাজিমউদ্দিন আহমেদ, ময়মনসিংহ-৫ কেএম খালিদ বাবু, ময়মনসিংহ-৬ মোসলেম উদ্দিন, ময়মনসিংহ-৭ রুহুল আমিন মাদানী, ময়মনসিংহ-৯ আনোয়ারুল আবেদীন খান তুহিন, ময়মনসিংহ-১০ ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল, ময়মনসিংহ-১১ তাজিমউদ্দিন আহমেদ ধনু, শেরপুর-১ আতিউর রহমান আতিক, শেরপুর-২ মতিয়া চৌধুরী, শেরপুর-৩ একেএম ফজলুল হক, নেত্রকোণা-১ মানু মজুমদার, নেত্রকোণা-২ আশরাফ আলী খান খসরু, নেত্রকোণা-৩ অসীম কুমার উকিল, নেত্রকোণা-৪ রেবেকা মমিন, নেত্রকোণা-৫ ওয়ারেসাত হোসেন বেলাল, জামালপুর-১ আবুল কালাম আজাদ, জামালপুর-২ ফরিদুল হক খান, জামালপুর-৩ মির্জা আজম, জামালপুর-৪ মুরাদ হাসান, জামালপুর-৫ মোজাফফর হোসেন, সিলেট-১ একে আবদুল মোমেন, সিলেট-৩ মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী কয়েস, সিলেট-৪ ইমরান আহমেদ, সিলেট-৫ হাফিজ আহমেদ মজুমদার, হবিগঞ্জ-১ দেওয়ান শাহনেওয়াজ মিলাদ গাজী, হবিগঞ্জ-২ আবদুল মজিদ খান, হবিগঞ্জ-৩ আবু জাহির, হবিগঞ্জ-৪ মাহবুব আলী, সুনামগঞ্জ-২ জয়া সেনগুপ্তা, সুনামগঞ্জ-৩ এমএ মান্নান, সুনামগঞ্জ-৫ মহিবুর রহমান মানিক, মৌলভীবাজার-১ শাহাব উদ্দিন, মৌলভীবাজার-৩ নেছার আহম্মেদ, মৌলভীবাজার-৪ আবদুস শহীদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ বদরুদ্দোজা ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ রআম উবায়দুল মুক্তাদির চৌধুরী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ আনিসুল হক, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ এবাদুল কবির বুলবুল, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ এবি তাজুল ইসলাম, কুমিল্লা-১ সুবিদ আলী ভুঁইয়া, কুমিল্লা-২ সেলিমা আহমদ মেরী, কুমিল্লা-৩ ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, কুমিল্লা-৪ রাজি মোহাম্মদ ফখরুল, কুমিল্লা-৫ আবদুল মতিন খসরু, কুমিল্লা-৬ আকম বাহাউদ্দিন বাহার, কুমিল্লা-৭ আলী আশরাফ, কুমিল্লা-৯ তাজুল ইসলাম, কুমিল্লা-১০ আহম মোস্তফা কামাল, কুমিল্লা-১১ মুজিবুল হক, চাঁদপুর-১ মহীউদ্দীন খান আলমগীর, চাঁদপুর-২ সাবেক ছাত্রনেতা নুরুল আমিন, চাঁদপুর-৩ দীপু মনি, চাঁদপুর-৪ শামসুল হক ভুঁইয়া, নোয়াখালী-১ এইচএম ইব্রাহীম, নোয়াখালী-২ মোরশেদ আলম, নোয়াখালী-৩ মামুনুর রশিদ কিরণ, নোয়াখালী-৪ একরামুল করিম চৌধুরী, নোয়াখালী-৫ ওবায়দুল কাদের, নোয়াখালী-৬ আয়েশা ফেরদৌস, লক্ষ্মীপুর-৩ একেএম শাহজাহান কামাল, ফেনী-২ নিজামউদ্দিন হাজারী, চট্টগ্রাম-১ মোশাররফ হোসেন, চট্টগ্রাম-৩ মাহফুজুর রহমান মিতা, চট্টগ্রাম-৪ দিদারুল আলম, চট্টগ্রাম-৬ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৭ হাসান মাহমুদ, চট্টগ্রাম-৯ মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, চট্টগ্রাম-১০ আফছারুল আমিন, চট্টগ্রাম-১১ এম আবদুল লতিফ, চট্টগ্রাম-১২ শামসুল হক চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৩ সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, চট্টগ্রাম-১৪ নজরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৫ আবু রেজা মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন নদভী, কক্সবাজার-১ জাফর আলম, কক্সবাজার-২ আশেক উল্লাহ রফিক, কক্সবাজার-৩ সাইমুম সরোয়ার কমল, কক্সবাজার-৪ শাহীনা আক্তার চৌধুরী, রাঙামাটি দীপংকর তালুকদার, বান্দরবান বীর বাহাদুর উসৈ সিং এবং খাগড়াছড়িতে কুজেন্দ্রলাল ত্রিপুরা। জোটের আসন বণ্টন নিয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, জোটের শরিকদের মধ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি ৫ আসনে, জাসদ ৩টিতে, বিকল্পধারা বাংলাদেশের নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট ৩টিতে, তরিকত ২, জেপি-মঞ্জু ২ ও জাসদ-আম্বিয়ার ১ জন প্রার্থী নৌকা প্রতীকে লড়বেন। জাতীয় পার্টি ৪০-৪২টি আসনে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে লড়বে। সব মিলিয়ে শরিকদের প্রায় ৬০টি আসন দেয়া হয়েছে। কয়েকটি আসন উন্মুক্ত থাকার ইঙ্গিত দিয়ে তিনি বলেন, শরিকদের যারা আছেন, তারা যদি আরও আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান, তবে নিজেদের প্রতীকে করতে পারবেন। আমরা শুধু নৌকা প্রতীকে কয়েকটি আসন দিলাম।

২০৬ আসনে বিএনপি শরিকরা ৯৪
কারাবান্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার তিনটি আসন শূন্য রেখে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে ২০৬ জনকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। গতকাল শুক্রবার গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করেন। আদালতের একটি রায়ের পর খালেদা জিয়ার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়লে তার তিন আসনেই এর আগে বিকল্প প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছিলো বিএনপি। খালেদা জিয়ার বগুড়া-৬ আসন থেকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বগুড়া-৭ আসনে মোর্শেদ মিল্টন ও ফেনী-১ আসনে যুবদল নেতা রফিকুল আলম মজনু নির্বাচন করার কথা ছিলো। কিন্তু গতকাল যে ২০৬ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে সেখানে খালেদার তিন আসনে বিকল্প কোনো প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়নি। কেন খালেদা জিয়ার তিনটি আসন ফাঁকা রয়েছে, জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এ তিনটি আসন ভালোর জন্যই রাখা হয়েছে। থাক না কিছু সময়ে অপেক্ষা। দেখা যাক শেষ পর্যন্ত কি হয়।’ প্রার্থী ঘোষণার আগে ফখরুল জানান, ২০ দলীয় জোট এবং ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীদের তালিকা আজ শনিবার ঘোষণা করা হবে। নির্বাচন কমিশনে আপিল করে যারা প্রার্থিতা ফিরে পাবেন, তাদের নামও সেখানে আসবে। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘অনেক প্রতিকূলতার মধ্যে আমরা এই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি। গণতান্ত্রিক অন্দোলন এবং বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির অংশ হিসেবে আমরা এই নির্বাচনে আছি।’ বিএনপির চূড়ান্ত প্রার্থীদের তালিকা (আংশিক) রংপুর বিভাগ পঞ্চগড়-১ নওশদ জমির, পঞ্চগড়-২ ফরহাদ হোসেন আজাদ, ঠাকুরগাঁও-১ মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ঠাকুরগাঁও-৩ জাহিদুর রহমান, দিনাজপুর-২ মো. সাদিক, দিনাজপুর-৪ আক্তারুজ্জামান ভুঁইয়া, দিনাজপুর-৫ এজেডএম রেজওয়ানুল হক, নীলফামারী-১ রফিকুল ইসলাম, রংপুর-২ মোহাম্মদ আলী সরকার, রংপুর-৩ রিটা রহমান (শরিক), রংপুর-৪ এমদাদুল হক ভরসা, রংপুর-৬ সাইফুল ইসলাম, কুড়িগ্রাম-১ সাইফুর রহমান রানা, কুড়িগ্রাম-৩ তাজবিরুল ইসলাম কুড়িগ্রাম-৪ আজিজুর রহমান, লালমনিরহাট-১ হাসান রাজিব প্রধান, লালমনিরহাট-২ রোকনউদ্দিন বাবুল, লালমনিরহাট-৩ আসাদুল হাবিব দুলু, গাইবান্ধা-২ আবদুর রশিদ সরকার, রাজশাহী বিভাগ জয়পুরহাট-১ ফজলুর রহমান, জয়পুরহাট-২ আবু ইউসুফ মো. খলিলুর রহমান, বগুড়া-১ কাজী রফিকুল ইসলাম, বগুড়া-৪ মোশাররফ হোসেন, বগুড়া-৫ বিএনপির জিএম সিরাজ, রাজশাহী-১ আমিনুল হক, রাজশাহী-২ মিজানুর রহমান মিনু, রাজশাহী-৩ শফিকুল হক মিলন, রাজশাহী-৪ আবু হেনা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ শাজাহান মিয়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আমিনুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ হারুন অর রশিদ, নাটোর-১ কামরুন্নাহার শিরীন, নাটোর-২ সাবিনা ইয়াসমিন ছবি, নাটোর-৪ আবদুল আজিজ, নওগাঁ-৩ পারভেজ আরেফিন সিদ্দিকী জনি। সিরাজগঞ্জ-১ কনক চাঁপা, সিরাজগঞ্জ-৬ কামরুদ্দিন ইয়াহিয়া মজলিস, পাবনা-২ সেলিম রেজা হাবিব। পাবনা-৪ হাবিবুর রহমান। খুলনা বিভাগ খুলনা-১ আমির এজাজ খান, খুলনা-২ নজরুল ইসলাম মঞ্জু, খুলনা-৩ রকিবুল ইসলাম বকুল, খুলনা-৪ আজিজুল বারী হেলাল, যশোর-১ মফিকুল হাসান তৃপ্তি, যশোর-৩ অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, মাগুরা-১ মনোয়ার হোসেন খান, মাগুরা-২ নিতাই রায় চৌধুরী। বরিশাল বিভাগ বরিশাল-৫ মজিবুর রহমান সরোয়ার,পটুয়াখালী-৩ গোলাম মাওলা রনি, ভোলা-৩ হাফিজ উদ্দিন আহমেদ, ভোলা-৪ নাজিম উদ্দিন আলম, ঝালকাঠি-২ জেবা আমিন খান। ঢাকা বিভাগ ঢাকা-১ আবু আশফাক, ঢাকা-২ ইরফান ইবনে আমান, ঢাকা-৩ গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ঢাকা-৪ সালাহউদ্দিন, ঢাকা-৮ মির্জা আব্বাস, ঢাকা-১২ সাইফুল আলম নীরব, ঢাকা-১৩ আবদুস সালাম। ঢাকা-১৯ দেওয়ান মোহাম্মদ সালাহউদ্দিন বাবু, ঢাকা-২০ তমিজ উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ-২ নজরুল ইসলাম আজাদ
মুন্সীগঞ্জ-১ শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, মুন্সীগঞ্জ-২ মিজানুর রহমান সিনহা, মুন্সীগঞ্জ-৩ আব্দুল হাই, গাজীপুর-১ চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী, গাজীপুর-২ সালাহউদ্দিন সরকার, গাজীপুর-৪ শাহ রিয়াজুল হান্নান, গাজীপুর-৫ ফজলুল হক মিলন, মানিকগঞ্জ-১ এ কে জিন্নাহ কবির, টাঙ্গাইল-২ সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, টাঙ্গাইল-৫ মাহমুদুল হাসান, টাঙ্গাইল-৬ গৌতম চক্রবর্তী, কিশোরগঞ্জ-২ আখতারুজ্জামান, কিশোরগঞ্জ-৪ ফজলুর রহমান, কিশোরগঞ্জ-৫ মুজিবুর রহমান ইকবাল, কিশোরগঞ্জ-৬ শরীফুল আলম, নরসিংদী-১ খায়রুল কবির খোকন, নরসিংদী-২ আবদুল মঈন খান, নরসিংদী-৪ সরদার সাখাওয়াত হোসেন বকুল, ফরিদপুর-২ শ্যামা ওবায়েদ, ফরিদপুর-৪ ইকবাল হোসেন, রাজবাড়ী-১ আলী নেওয়াজ ওমর খৈয়াম, রাজবাড়ী-২ নাসিরুল হক সাবু।সিলেট বিভাগ সিলেট-৩ শফি আহমেদ চৌধুরী, সিলেট-৪ দিলদার হোসেন সেলিম, হবিগঞ্জ-৩ জি কে গউছ, মৌলভীবাজার-৩ নাসের রহমান, মৌলভীবাজার-৪ মুজিবুর রহমান চৌধুরী,ময়মনসিংহ বিভাগ ময়মনসিংহ-২ শাহ শহীদ সরোয়ার, ময়মনসিংহ-৩ আহমদ তায়েবুর রহমান, ময়মনসিংহ-৫ জাকির হোসেন বাবলু, ময়মনসিংহ-৬ শামসুদ্দিন আহমেদ, ময়মনসিংহ-৭ জয়নুল আবেদীন, ময়মনসিংহ-৯ খুররম খান চৌধুরী, ময়মনসিংহ-১১ ফখরুদ্দিন আহমেদ বাচ্চু, শেরপুর-১ সানজিলা জেবরিন, নেত্রকোণা-১ কায়সার কামাল, নেত্রকোণা-২ আনোয়ারুল হক, নেত্রকোণা-৩ রফিকুল ইসলাম হেলালী, নেত্রকোণা-৪ তাহমিনা জামান, জামালপুর-২ সুলতান মাহমুদ বাবু, জামালপুর-৩ মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, জামালপুর-৪ ফরিদুল কবির তালুকদার শামীম, জামালপুর-৫ ওয়ারেস আলী মামুন।চট্টগ্রাম বিভাগ কুমিল্লা-১ খন্দকার মোশাররফ হোসেন, কুমিল্লা-৩ মুজিবুল হক, কুমিল্লা-৮ জাকারিয়া তাহের সুমন, নোয়াখালী-১ মাহবুব উদ্দিন খোকন, নোয়াখালী-২ জয়নুল আবদীন ফারুক, নোয়াখালী-৩ বরকত উল্লাহ বুলু, নোয়াখালী-৪ মো. শাহজাহান, নোয়াখালী-৫ মওদুদ আহমদ, লক্ষ্মীপুর-২ আবুল খায়ের ভুঁইয়া, লক্ষ্মীপুর-৩ শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, চট্টগ্রাম-৪ ইসহাক চৌধুরী, চট্টগ্রাম-৬ জসিম উদ্দিন শিকদার, চট্টগ্রাম-৭ কুতুবউদ্দিন বাহার, চট্টগ্রাম-৯ শাহাদাৎ হোসেন, চট্টগ্রাম-১০ আবদুল্লাহ আল নোমান, চট্টগ্রাম-১১ আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১২ এনামুল হক, চট্টগ্রাম-১৩ সারোয়ার জামাল নিজাম, চট্টগ্রাম-১৬ জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, কক্সবাজার-১ হাসিনা আহমেদ, কক্সবাজার-২ আলমগীর মোহাম্মদ মাহফুজউল্লাহ ফরিদ, কক্সবাজার-৩ লুৎফর রহমান কাজল, কক্সবাজার-৪ শাহজাহান চৌধুরী, রাঙামাটি : মনি স্বপন দেওয়ান, বান্দরবান : সা চিন পরু, খাগড়াছড়ি : শহীদুল ইসলাম ভুঁইয়া। -ডেস্ক