দেলোয়ার হোসেন বাদশা, (দিনাজপুর২৪.কম) দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীকে অপহরনের পর বিয়ের মিথ্যা নাটক সাজিয়ে দেড়মাস ধরে ধর্ষন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে লম্পট দুলাভাই নূর মোহাম্মদ। এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা এন্তাজ মন্ডল গত বুধবার রাতে বাদী হয়ে চিরিরবন্দর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছে। মামলার এজাহার সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার পুনট্টি তেলীপাড়া গ্রামের এজাজ মন্ডলের মেয়ে রহিমার সাথে একই উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে নুর মোহাম্মদের(৩৫) সাথে ৯ বছর পূর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের মাঝে পারিবারিক কলহ শুরু হলে রহিমা গার্মেন্টসে চাকুরীর জন্য ৪ বছর পূর্বে ঢাকায় পাড়ি জমায়। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে লম্পট দুলাভাই নুর মোহাম্মদ পাটাইকুড়ী দারুন নাজাত দাখিল মাদরাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী শ্যালিকা লতিফা খাতুন (১৪) (ছদ্মনাম) কে বিভিন্ন সময় মাদরাসায় যাতায়াতের পথে উত্ত্যক্ত করতো। ঘটনার দিন গত ২ মে লতিফা মাদরাসা হতে বাড়ী ফেরার পথে মাদরাসা সংলগ্ন কাঁচা রাস্তার মোড় হতে ফুসলিয়ে অপহরন করে বাড়ীতে নিয়ে যায় এবং রাতেই স্থানীয় মৌলভী আইনুল হকের ছেলে ইয়াকুব আলী (২০) ও আহম্মদ আলীর ছেলে আব্দুর রাজ্জাক (২৫)কে বিয়ের উকিল নিযুক্ত করে বিয়ের মিথ্যা নাটক সাজিয়ে দীর্ঘ দেড়মাস ধরে লতিফার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক ধর্ষন ও শারিরীক চালাতে থাকে। একপর্যায় গত ১৭ জুন সন্ধায় লতিফাকে বাড়ী হতে তাড়িয়ে দেয়। বাদী এন্তাজ মন্ডল জানায়, বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার জন্য স্থানীয় মাতবররা উদ্যোগ নিলেও আসামী নূর মোহাম্মদ বিষয়টি আমলে নেয়নি। এ ব্যাপারে চিরিরবন্দর থানার অফিসার ইনচার্জ আনিছুর রহমান জানান, ভিকটিমের ডাক্তারী পরীক্ষা সম্পন্ন করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোন আমামীকে আটক করা সম্ভব হয়নি তবে আটকের ব্যাপারে জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।