SAMSUNG CAMERA PICTURES

কাশী কুমার দাস (দিনাজপুর২৪.কম) চিরিরবন্দর উপজেলার আমতলী খামারকৃষ্ণপুর আদিবাসী কমিউনিটি সেন্টার প্রাঙ্গণে খামারকৃষ্ণপুর আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতি আয়োজিত ৩০ জুন মহান সানতাল বিদ্রোহ দিবস পালিত হয়।
সিঁদু-কানুসহ নামনাজানা আদিবাসীদের আত্মত্যাগের বিনিময় অর্জিত আদিবাসী জাতি গোষ্ঠীকে উজ্জিবীত করার লক্ষ্যে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা এবং সিঁদু-কানুর স্মৃতি স্তম্ভে পুস্পস্তবক প্রদান করা হয়। খামারকৃষ্ণপুর আদিবাসী সমাজ উন্নয়ন সমিতির সভাপতি আগস্টিন হে¤্রম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ১০ নং পুনট্টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নুরে আলম। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মাইনোরেটি ওয়াচ দিনাজপুর চেপ্টারের সভাপতি কমল কান্ত কর্মকার, বাংলাদেশ মাইনোরেটি ওয়াচ কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য জেনস পিটার তালুকদার, এনডিএফ এর লিগ্যাল প্রমোটার সেবাস্টিয়ান হেম্ব্রম দিনাজপুর চেপ্টারের সদস্য জয়ন্ত দাস, পুনট্টি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য জহির উদ্দিন সরকার, লোকমান হাকিম, চিরিরবন্দর উপজেলা আদিবাসী সমিতির চেয়ারম্যান গুলজার সরেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সমিতির সহ-সভাপতি গোপাল কিস্কু,  সাধারণ সম্পাদক নিকোলাস বাস্কে, সহ-সম্পাদক নিরেন টুডু, কোষাধ্যক্ষ উকিল মুর্মূ প্রমুখ। বক্তারা বলেন সাঁওতাল জাতির ইতিহাসে সিঁদু-কানুর নেতৃত্বে সাঁওতাল যুদ্ধই ছিল সর্বাধিক বৃহত্তর এবং গৌরবের বিষয়। তাদের এই বিদ্রোহী ভারতবর্ষে স্বাধীনতার বীজ বপন করেছিল। কিন্তু দুঃখজনক ঘটনা হল এখনও আদিবাসীদের আদিবাসী হিসেবে সংবিধানিক স্বীকৃতি নেই। এখনও আদিবাসীরা জীবনযাপনে সামাজিক নিরাপত্তা নেই। যদিও বর্তমান সরকার তাদের উন্নয়নে যথেষ্ট ভূমিকা রাখছে তারপরও ভূমিহীন সাঁওতালদের বিষয় তেমন কোন কার্যক্রম দেখা যাচ্ছে না। আমরা আদিবাসীদের শিক্ষা ও কর্মসংস্থান এবং তাদের ঐতিহ্য সংরক্ষণের দাবী জানাচ্ছি।