-সংগ্রহীত

(দিনাজপুর২৪.কম) চাঁদপুর সদর উপজেলায় দুই সন্তান ও স্ত্রীকে খুনের পর এক যুবকের আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। পারিবারিক কলহের জের ধরে সোমবার (১৭ডিসেম্বর) ভোর রাতে সদর উপজেলার দেবপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে। সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) সকালে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দিলে তারা ঘটনাস্থলে এসে মাইনুদ্দীন সরদার (২৬), তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম (২৪), মেয়ে মিথিলা (৬) ও ছেলে সিয়ামের(৩) লাশ দেখতে পায়।নিহত মাইনুদ্দীন চট্টগ্রামে একটি বেকারিতে কাজ করতো। রামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আল মামুন পাটওয়ারী জানান, রোববার রাতের কোনো এক সময়ে এই ঘটনা ঘটে। ধারণা করা হচ্ছে- পারিবারিক কলহের কারণেই এই ঘটনাটি ঘটেছে। দুই সন্তানকে শ্বাসরোধ করে হত্যা, আর স্ত্রীকে পুকুরের পানিতে ডুবিয়ে হয়তো হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে থাকা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি সার্কেল) জাহিদুর রহমান চৌধুরী জানান, স্ত্রীর লাশটি পুকুরে পাওয়া গেছে। স্বামীর মরদেহ ঘরে ফাঁস দেয়া অবস্থায় আর দুই সন্তানের মরদেহ ঘরের মেঝেতে পাওয়া যায়।

চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( তদন্ত) হারুন অর রশীদ বলেন, ঘটনাস্থলে পুলিশের একটি তদন্ত দল কাজ করছে। তদন্তের পরই জানা যাবে এটি খুন নাকি আত্মহত্যা।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার ওসি মো নাসিম উদ্দিন প্রতিবেশীদের বরাত দিয়ে বলেন; “ভোর রাতে মাইনুদ্দিন ও ফাতেমার মধ্যে ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে মাইনুদ্দিন তার স্ত্রীকে বাড়ির পুকুরে চুবিয়ে হত্যা করে। “এরপর সে ঘরে ঘুমিয়ে থাকা দুই সন্তানকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরে মাইনুদ্দিন নিজেও ঘরের ভেতর গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।” “পুলিশের একটি দলকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি। -ডেস্ক