(দিনাজপুর২৪.কম) গাজীপুরের শ্রীপুরে দাবিকৃত এক লাখ টাকা ঘুষ না পারায় মোশারফ হোসেন বেপারী নামে বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্স্টাসের এক ছাত্রকে মাদক মামলা দিয়ে জেল হাজতে পাঠানোর অভিযোগ ওঠেছে। রোববার সকালে শ্রীপুর থানার এস আই আবুল হাসান ওই ছাত্রের কাছে ৩৫ পিস ইয়াবা ছিল বলে অভিযোগ করে মামলাটি দায়ের করেন।

উপজেলার মাওনার সিংগারদিঘী গ্রামের হেলাল উদ্দিন বেপারীর ছেলে মোশারফ হোসেন শনিবার সন্ধ্যার দিকে নিজের মোটর সাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। এ সময় টহলরত এসআই আবুল হাসান মোশারফের গতিরোধ করে মোটর সাইকেলের  কাগজপত্র চান। সঙ্গে কাগজপত্র না থাকায় হ্যান্ডকাপ পড়িয়ে তাকে মোটর সাইকেলসহ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে বাড়ি থেকে মোটর সাইকেল কেনার কাগজপত্র নিয়ে থানায় দেখালেও তাকে ছেড়ে দেয়নি ওই পুলিশ অফিসার। এক পর্যায়ে মোশারফের কাছে ইয়াবা ছিল বলে অভিযোগ তুলেন এসআই আবুল হাসান। ছেড়ে দেওয়া নিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সাথে দফায় দফায় তার চলে দরকষাকষি। হেলাল উদ্দিন জানান, নিরপরাধী ছেলেকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য এক লাখ টাকা দাবি করেন পুলিশ আবুল হাসান। ৩০ হাজার টাকা দিতে চাইলে প্রত্যাখ্যান করেন ওই পুলিশ। পরে  মোশারফের কাছে ৩৫ পিস ইয়াবা ছিল বলে অভিযোগ করে এসআই আবুল হাসান বাদী হয়ে মামলা করে তাকে জেল হাজতে পাঠান। মোশারফের বাবা অভিযোগ করে বলেন, টাকা দিতে না পারায় মিথ্যা মাদক মামলা দিয়ে আমার ছেলের জীবনটা শেষ কইরা দিল পুলিশ। শোনছি ছেলেটারে অনেক মারছে মাদকের কথা স্বীকার করার জন্য।

এ বিষয়ে শ্রীপুর থানার এসআই আবুল হাসান বলেন, দারগারচালা এলাকা থেকে মোশারফকে ধরা হয়েছে। আমার কাছে প্রমাণ রয়েছে, তার সাথে মাদক ছিল। -ডেস্ক