(দিনাজপুর২৪.কম) গাজীপুরে বিজ্ঞাপনের একটি শুটিং ইউনিটে নবাগত এক মডেল মায়িশা খানকে ধর্ষণের চেষ্টা করার অভিযোগে নির্মাতাসহ ৯ জনকে আটক গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তাকৃতরা হলেন- বরিশালের আকবর হোসেন রাজিব (টাইগার রাজিব), নরসিংদীর আবুল কালাম আজাদ, চাঁদপুরের মো. আলম, চাপাই নবাবগঞ্জের ওমর ফারুক,পাবনার রেন্টু, বিনাইদহের জুম্মান, ময়মনসিংহের খলিল, কুমিল্লার হিমেল ও নরসিংদীর শুভ। এছাড়া শুটিং ইউনিটের সব সরঞ্জাম পুলিশ ফাঁড়িতে জব্দ করে রাখা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তাদেরকে মঙ্গলবার গাজীপুর আদালতে চালান করা হলে আদালতের নির্দেশে পরে তাদের পাঠানো হয় জেল হাজাতে।
গাজীপুরের জয়দেবপুর থানাধিন হোতাপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সৈয়দ আজাহারুল ইসলাম জানান, ভিকটিম মডেল মায়িশা খান (১৮) নিজেই বাদী হয়ে নারী নির্যাতনের মামলাটি দায়ের করেন। এর আগে তার স্বজনরা ঘটনাটি পুলিশে জানালে পুলিশ ওই মডেলকে স্যুটিং স্পট থেকে উদ্ধার করে। সেই সঙ্গে ঘটনার রাতেই নয় যুবককে আটক করে। এজাহারের অভিযোগের উদ্বৃত দিয়ে তিনি আরও জানান, সরিষা তেলের ভিডিও চিত্রে অভিনয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত রোববার বিকেলে ওই নারীকে ঢাকা থেকে তারা গাজীপুর সদর উপজেলার হোতাপড়ার অবস্থিত খতিব খামার বাড়িতে নিয়ে আসে। এরপর তারা তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ ব্যাপারে সেই মডেল মায়িশা খান (১৮) বাদি হয়ে জয়দেবপুর থানায় মামলা করেছেন। মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, রাত সাড়ে ৮টা বা তার কিছু কাছাকাছি সময়ে ওই মডেলকে শুটিং স্পটের একটি কক্ষে অবস্থান করছিলেন। সেসময় বিজ্ঞাপণটির পরিচালক টাইগার রাজিব ও তার সহকারি আজাদ তার কক্ষে ঢুকে ঘরের দরজা আটকে দেয় এবং অন্যরা বাহিরে অবস্থান করতে থাকেন। এরপর রাজিব ও আজাদ সেখানে ওই নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এসময় তিনি চিৎকার দিলে এবং কৌশলে সেখান থেকে বেড়িয়ে আসেন। এরপর তিনি তার স্বজনদের মোবাইল ফোনে ঘটনাটি জানান।(ডেস্ক)