(দিনাজপুর২৪.কম) ২৩ এপ্রিল ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব বই-দিবস। পৃথিবীর প্রায় ১০০টি দেশে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে এই দিবসটি পালন করা হয়ে থাকে। এই দিবসের অন্যতম উদ্দেশ্য তরুনদের বইপড়ায় আগ্রহী করে তোলার জন্য পাঠাভ্যাসের প্রসার ও সুযোগ বৃদ্ধি করা। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সেকায়েপ প্রকল্প এ লক্ষ্যে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। বইপড়ার গুরুত্ব সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির উদ্দেশ্যে আজ ২৩ এপ্রিল ২০১৬ ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব বই-দিবসে সেকায়েপ প্রকল্পভুক্ত ২১৫টি উপজেলায় প্রায় ১০ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে বিভিন্নমুখী কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে সেকায়েপভূক্ত সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে দেয়াল পত্রিকা প্রকাশ ও প্রদর্শনী, বই পড়ার গুরুত্ব বিষয়ে সেমিনার ও আলোচনা সভা, র‌্যালি বিতর্ক প্রতিযোগিতা/উপস্থিত বক্তৃতা ইত্যাদির আয়োজন করা হয়েছে।
গঙ্গাচড়া উপজেলায় ৫৯ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়িত হচ্ছে।  ২০১৬ সালে এই উপজেলায় প্রায় ১১০০০ জন ছাত্র-ছাত্রী বইপড়া কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছে। বিশ্ব বই-দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের সহযোগিতায় ৩০ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বইপড়ার গুরুত্ব বিষয়ে সেমিনার আয়োজন করা হয়েছে। বইপড়া কর্মসূচি সদস্যদের আয়োজনে অুনষ্ঠিত এসকল সেমিনারে শিক্ষক, অভিভাবক এবং ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রতিনিধিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ছাত্র-ছাত্রীরা বইপড়ার গুরুত্ব নিয়ে নিজেরাই এই সেমিনারে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য তুলে ধরেছে। উপস্থিত বক্তাদের সকলেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে লাইব্রেরির উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি তাদের বক্তব্যে তুলে ধরেন।
বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে এ উপলক্ষে দেয়ালিকা প্রকাশ. র‌্যালিসহ সাংস্কৃতিক পর্বের আয়োজন করা হয়েছে।
ইউনেস্কো ১৯৯৫ সাল থেকে এ দিনটি বিশ্ব বই ও কপিরাইট দিবস (World Book and Copyright Day) হিসেবে উদযাপন করে আসছে এবং সব সদস্য দেশকে উদযাপন করতে অনুরোধ করেছে। বিশ্ব বই- দিবস উন্নত দেশগুলোতে পালিত হয় বইকে জীবনের সঙ্গে জড়িত করার জন্য, জীবনে চলার পথে সঙ্গী করার জন্য। ইউনেস্কো বিশ্ব বই-দিবস হিসেবে ২৩ এপ্রিলকে নির্বাচন করে কালজয়ী ইংরেজ লেখক উইলিয়াম শেকসপিয়ার এবং পেরুভিয়ান লেখক গার্সিলাসো দে লা ভেগাকে স্মরণ করার জন্য। উল্লিখিত দুই লেখকই এই দিনে মৃত্যু বরণ করেন। বিশ্বব্যাপী এই দিবসের উদ্দেশ্য হলো-