(দিনাজপুর২৪.কম) একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যমে বিভ্রান্তিকর তথ্য সম্বলিত সংবাদ প্রকাশের অভিযোগে করা মামলায় খুলনার সাংবাদিক হেদায়েত হোসেন মোল্লাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে তাকে নগরীর গল্লামারী এলাকা থেকে বটিয়াঘাটা থানা পুলিশ গ্রেফতার করে বলে জানায়। পুলিশ জানায়, গত রোববার অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খুলনা-১ (দাকোপ-বটিয়াঘাটা) আসনের মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে সোমবার অনলাইন পোর্টাল ‘বাংলা ট্রিবিউন’ ও ‘দৈনিক মানবজমিন’ পত্রিকায় ‘খুলনা-১ : ভোটারের চেয়ে ২২৪১৯ ভোট বেশি পড়েছে’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশ করা হয়।

উক্ত সংবাদ প্রকাশের কারণে সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা, নির্বাচন কমিশন ও নির্বাচন সংশ্লিষ্টদের সুনাম ও ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। এ কারণে ‘বাংলা ট্রিবিউন’ এর খুলনা প্রতিনিধি হেদায়েত হোসেন মোল্লা ও দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার খুলনার স্টাফ রিপোর্টার রাশিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেবাশীষ চৌধুরী মঙ্গলবার সকালে বটিয়াঘাটা থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫, ৩১, ৩৩ ও ৩৫ ধারায় মামলা দায়ের করেন। বটিয়াঘাটা থানার মামলা নং- ৬।

বটিয়াঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুবুর রহমান জানান, মিথ্যা ও ভুয়া তথ্য দিয়ে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের অভিযোগে দায়েরকৃত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ২টার দিকে নগরীর গল্লামারী এলাকা থেকে হেদায়েত নামে একজন সাংবাদিককে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। আদালত তাকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

বটিয়াঘাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, গত সোমবার মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে খুলনা-১ আসনের সংবাদ প্রকাশ করায় ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে’ মামলা হয়েছে। এতে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের খুলনা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন সাংবাদিক হেদায়েতের গ্রেফতারের সত্যতা স্বীকার করেছেন।

এদিকে সাংবাদিক হেদায়েত হোসেনকে কারাগারে নেওয়ার সময় কারা ফটকের সামনে তিনি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন গ্রেফতারের পর বটিয়াঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ও অন্যান্য পুলিশ সদস্যরা তাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেছে। -ডেস্ক