(দিনাজপুর২৪.কম) কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য তৃতীয় বারের মতো হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে আজ দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) আনা হয়। দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে রাজধানীর পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে খালেদা জিয়াকে বহনকারী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়িবহর রওনা হয়। দুপুর ১২টা ৩৭ মিনিটে গাড়িবহর হাসপাতালে প্রবেশ করে।

কালো রংয়ের জিপ থেকে নামিয়ে হুইল চেয়ারে করে বিএনপি চেয়ারপারসনকে হাসপাতালের ভেতরে নেয়া হয়। কঠোর নিরাপত্তায় কারা পুলিশ তাকে ভেতরে নিয়ে যায়। এ সময় খালেদা জিয়ার সেবিকা ফাতেমা বেগমকেও দেখা গেছে।

এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কড়াকড়ি করতে দেখে গেছে। সেখানে উপস্থিত বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসসহ অপেক্ষামান নেতাকর্মীদের দলের প্রধানের সঙ্গে দেখা করতে বা হাসপাতালের ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি।

এর আগে গত ১০ই মার্চ খালেদা জিয়াতে বিএসএমএমইউতে আনার সকল প্রস্তুতি থাকলেও তাকে আনা হয়নি।

হাসপাতালের সামনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন,  দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। তাকে সম্পূর্ণ অন্যায় ও  বেআইনিভাবে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। তিনি কারাগারে অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। গতবার যখন তাকে হাসপাতাল থেকে ফেরত নেয়া হয় তখন ছাড়পত্র ছাড়াই  নেয়া হয়েছে। তারপর থেকে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়নি। কতৃপক্ষ সেখানে যান নি। প্রায় ৪ মাস পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার পর চকিৎসকরা তার রক্ত পরীক্ষা করতে যায়, সেই রক্ত পরীক্ষার প্রায় ১ মাস পরে আজকে তাকে হাসপাতালো আনা হলো। আমরা এ কথা বারবার বলেছি তিনি এ হাসপাতালে আসতে চান না। তিনি মনে করেন, এখানে তার চিকিৎসা হয় না। আমরা তাই বারবার বলেছি, তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে। কিন্তু সরকার এ কথায় কোনো কর্নপাত করেন নি। আমরা খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে অত্যন্ত উদ্বিগ্ন, শঙ্কিত, তাই দাবি করছি তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হোক।

ফখরুল বলেন, আমরা আশা করবো, সরকার যেন এখানে সর্বোত্তম চিকিৎসা এবং একটা সুষ্ঠু পরিবেশ তাকে দেয়া হয়। আমরা আগেও বারবার বলেছি এখানে এমন ব্যবস্থায় তাকে যেন রাখা না হয়, যাতে তিনি মনে করেন বন্দী অবস্থায় তার চিকিৎসা হচ্ছে। তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে নেয়ার প্রয়োজন। তার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদের  মেডিকেল বোর্ডের সঙ্গে সমন্বয় করার।

তাকে জোর করে এখানে আনা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, তাকে ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর এখানে আনা হয়েছে কিনা জানি না। তবে তিনি এতই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন যে, তাকে জরুরী ভিত্তিতে হাসপাতালে আনা না হলে অনেক রকম প্রশ্ন তৈরি হতে পারে। -ডেস্ক