(দিনাজপুর২৪.কম) জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন মর্মে তার সর্বোচ্চ সাজার দাবি করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। আজ মঙ্গলবার রাজধানীর বকশী বাজারে কারা অধিদপ্তরের প্যারেড মাঠে অবস্থিত বিশেষ আদালতে মামলার রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে এ দাবি করেন তিনি। পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী বুধবার ধার্য করা হয়েছে।
মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, ৩২ জন সাক্ষীর মাধ্যমে আমরা এ মামলার অভিযোগ প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। তাই এ দ-বিধির ১০৯, ৪০৯ এবং দুদক আইনের ৫এর ২ ধারায় তার(খালেদা জিয়া) সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করছি।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে দুই দুর্নীতি মামলার বিচারিক কার্যক্রম চলছে রাজধানীর বকশিবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামানের আদালতে।
উল্লেখ্য, ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা দায়ের করে দুদক। এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি বিদেশি ব্যাংক থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ এনে এ মামলা দায়ের করা হয়। মামলায় খালেদা জিয়াসহ আসামি মোট ছয়জন।

অন্য পাঁচ আসামি হলেন- বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খালেদার বড় ছেলে তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।
আসামিদের মধ্যে ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান মামলার শুরু থেকেই পলাতক। বাকিরা জামিনে আছেন। -ডেস্ক