(দিনাজপুর২৪.কম) জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ৫ বছরের সাজার রায় শোনার সাথে সাথে বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা ঢাকা জজ কোর্ট এলাকায় ক্ষোভে ও বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। তারা দফায় দফায় ঢাকা আইনজীবী সমিতির প্রাঙ্গন থেকে বিক্ষোভ মিছিল ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত হয়ে সিএমএম আদালতে পদক্ষিন করে এবং উত্তেজিত আইনজীবীরা সিএমএম আদালতের স্থাপিত মেটাল ডিটেকটিভ দরজা লাথি মেরে ফেলে দেয় এবং প্রিজন ভ্যানের সাইডের গ্লাস ভেঙ্গে ফেলে।

এরপর মিছিলটি ঢাকা সিএমএম আদালত থেকে প্রতিবাদ সহকারে স্লোগান দেয়। মিথ্যা মামলায়, মনগড়া রায়, দেওয়ার ক্ষেত্রে আদালত স্বাধীন এই রায়ে তা প্রমাণিত হয়েছে। এ কথা শোনার পর পরই আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা তাদের ‍উপরে চড়াও হওয়া এবং হাতাহাতি ঘটনা ঘটে এবং কিলঘুষি মারে অবশেষে তাদেরকে ধাওয়া করে তারা দৌড়ে পালিয়ে যায় । কিছুক্ষন পর বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা একত্রিত হয়ে প্রতিবাদ করলে আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা লাঠি সোঠা ও লোহার রড দিয়ে আঘাত করতে উদ্যক্ত হয় এবং কিছু আইনজীবীদের উপর আঘাত করে এদের মধ্যে শাম্মী আক্তার হাসমী, পান্না মারাত্মকভাবে আঘাত প্রাপ্ত হয়।

এছাড়া আব্দুল খালেক মিলন ও ফরিদুল ইসলামকে আঘাত করে। এই ঘটনায় আইনজীবী রেজাউল করিম হিরন, ফজলে রাব্বীসহ বেশ কিছু আইনজীবীরা উভয় পক্ষকে শান্ত করার চেষ্টা করেন। এরপর আরোও আইনজীবীরা এসে বিএনপিপন্থী আইনজীবীকে তাদের শান্তিপূর্ণ মিছিল করার জন্য অন্যদিকে ধাবিত করে দেয়। এই ঘটনার পর আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা ঢাকা আইনজীবী সমিতির সামনে একত্রিত হয়ে এমন ভাবে ঘিরে রাখে যাতে করে বিএনপিপস্থি আইনজীবীরা সমিতি ভবনে প্রবেশ করতে না পারে। এতে বিএনপি পন্থী সমাবেশ করতে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ এর সামনে সমবত হয় সেখানে বিক্ষোভ করতে থাকে। -ডেস্ক