(দিনাজপুর২৪.কম) ইউনাইটেড হাসপাতালে খালেদা জিয়াকে ভর্তির ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। আবেদনের প্রেক্ষিতে ইউনাইটেড নয়, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করাতে রাজি আছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়।মঙ্গলবার (১২ জুন) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে নিজ কার্যালয়ে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কানদারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এসব কথা বলেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকারের সর্বোচ্চ ব্যবস্থায় যেখানে উন্নত চিকিৎসা হবে, সেখানেই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে নিয়ে যাওয়া হবে। ‘আমরা তাকে (খালেদা জিয়া) প্রস্তাব দেবো সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেওয়ার।’

দুপুরে খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কানদারের চিঠি নিয়ে উপদেষ্টা বিজন কান্তি সরকারসহ দুই চিকিৎসক দেখা করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে। এসময় তারা খালেদা জিয়াকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপতালে চিকিৎসার জন্য অনুরোধ জানান।

এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়ার পক্ষে দুইজন এসেছিলেন আমার কাছে। আমার সঙ্গে দেখা হওয়ার আগেই একটি পত্র দিয়েছেন। আমরা তাকে জানিয়েছি, বালাদেশের সবচেয়ে সমৃদ্ধ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল রয়েছে সেখানে নিয়ে যাবো, কিন্তু তিনি সম্মত হননি। আমাদের আইজি প্রিজন অন্যান্য সরকারি হাপাতালে নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন। তাতে তিনি যদি সম্মতি প্রকাশ করেন, তাহলে সেটা আমরা দেখবো।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আইজি প্রিজন বলেছেন, “খালেদা জিয়া যদি সিএমএইচে যেতে চান সেখানে আমরা তাকে নিয়ে যাবো, পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবো।” মোট কথা আমরা সব ধরনের প্রচেষ্টা নিচ্ছি সরকারিভাবে যেটা সম্ভব। প্রাইভেট হাসপাতালটির চেয়েও সিএমএইচ হাসপাতাল অনেক সমৃদ্ধ। সেখানে অনেক বেশি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক রয়েছেন। আমরা সেই প্রস্তাব দেবো, তারপর তিনি (খালেদা জিয়া) যে প্রতিক্রিয়া জানাবেন, আমরা তা দেখবো।’

নিজেদের খরচে ইউনাইটেড হাপাতালে চিকিৎসা করাতে চান খালেদা জিয়া এমন প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমি ক্লিয়ারলি বলছি সরকারিভাবে সর্বোচ্চ যেখানে যাওয়া যায় সেই চেষ্টা করছি। আমি মনে করি তার সেখানে (সিএমএইচ) যাওয়া উচিত।’

ইউনাইটেড হাসপাতালে আবেদনের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘এটার কোনও যুক্তি আছে বলে আমার মনে হয় না। সিএমএইচের মতো জায়গায় না যাওয়ার কোনও যুক্তি আছে বলে আমার মনে হয় না। ইউনাইটেডের চেয়ে সিএমএইচ সুযোগ-সুবিধা বেশি।’

সিএমএইচে যদি খালেদা জিয়া যেত সম্মত না হন, তাহলে কী করা হবে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তখন সিচুয়েশন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো, কী করা যায়।’ খালেদা জিয়া ঈদের আগে মুক্তি পাবেন কিনা, কারাগারেই ঈদ করছেন কিনা জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কোর্ট জানে, বিচার বিভাগ জানে। আমরা সব কিছুর জন্য প্রস্তুত রয়েছি।’

উল্লেখ্য,খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় দণ্ডিত হওয়ার পর থেকে চার মাস ধরে পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত এই কারাগারে একমাত্র বন্দি হিসেবে রয়েছেন। তিনি একবার অসুস্থ হয়ে পড়লে গত এপ্রিলের শুরুতে তাকে একবার বিএসএমএমইউতে নিয়ে এক্স রে করানো হয়েছিল।এর আগে,গত ৫ জুন তিনি হঠাৎ করে কারাগারে ‘মাথা ঘুরে’ পড়ে গেলে তার স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে বিএনপি; তাকে দেখতে গত শনিবার কারাগারে যান তার ব্যক্তিগত চারজন চিকিৎসক। খালেদার ‘মাইল্ড স্ট্রোক’ হয়েছে ধারণা করে তাকে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়ার সুপারিশ করেন তারা। ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়ার দাবি জানিয়ে আসছে বিএনপিও। -ডেস্ক