(দিনাজপুর২৪.কম) নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়ে যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে অবমাননার অভিযোগ থেকে রেহাই পেলেন জামায়াতে ইসলামীর সহযোগী সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের সভাপতি আব্দুল জব্বার ও সেক্রেটারি আতিকুর রহমান। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ মঙ্গলবার এই রায় দেয়। দুই শিবির নেতাকে ভবিষ্যতে মন্তব্য করার ক্ষেত্রে সতর্ক করে দিয়ে আদালত অবমাননার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।   যুদ্ধাপরাধী এটিএম আজহারুল ইসলামের মামলার রায় নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করে এর আগে আসামিপক্ষের আইনজীবী তাজুল ইসলামও ক্ষমা চেয়ে অব্যাহতি পেয়েছিলেন। আর অভিযোগের বিষয়ে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির মকবুল আহমেদ, নায়েবে আমির অধ্যাপক মুজিবুর রহমান ও ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমানের দেওয়া ব্যাখ্যা ‘গ্রহণযোগ্য’ মনে হওয়ায় আদালত তাদের সতর্ক করে অব্যাহতি দেয়। একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে গত বছরের ৩০ ডিসেম্বর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আজহারের ফাঁসির রায়ের পর ৩১ ডিসেম্বর ও ১ জানুয়ারি হরতাল করে জামায়াত। সে সময় রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বিবৃতি দিয়ে ট্রাইব্যুনালের বিচার নিয়ে বিভিন্ন বিরূপ মন্তব্য করেন জামায়াত-শিবিরের শীর্ষ নেতারা। এই প্রেক্ষাপটে প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে গত ১ জানুয়ারি ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রারের দপ্তরে আদালত অবমাননার অভিযোগ দাখিল করা হয়। এরপর ১২ জানুয়ারি ট্রাইব্যুনাল তাজুল, জামায়াতের তিন নেতা ও শিবিরের দুজনের বক্তব্যের ব্যাখ্যা চায়। কেন তাদের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনা হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল দেন বিচারক।
শিবির সভাপতি জব্বার ও সেক্রেটারি আতিক জবাব দাখিলের পর গত ১৪ জুন তার ওপর শুনানি হয়। ওইদিন আদালতে তাদের পক্ষে তাদের নিঃশর্ত ক্ষমা চান আইনজীবী শিশির মোহাম্মদ মুনির।
রায়ের সময় প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজ ও রেজিয়া সুলতানা খান আদালতে উপস্থিত ছিলেন। -(ডেস্ক)