(দিনাজপুর ২৪.কম) যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার চাঞ্চল্যকর কৃষক আ. সামাদ হত্যা মামলায় ১১ আসামীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। আজ দুপুরে খুলনার বিভাগীয় দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এম এ রব হাওলাদার এই রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন রফিক ওরফে রফিকুল ইসলাম, সিরাজুল ইসলাম, দ্বীন ইসলাম, শাহাদত্ হোসেন, রাজ্জাক, আলতাফ হোসেন, তোরব হোসেন, জাকির হোসেন, সোহরাব হোসেন, রফিক ও রাজ্জাক আকঞ্জী।আদালত হত্যা মামলার রায়ে প্রত্যেক আসামীকে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরো ১ বছর বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন। একইসঙ্গে এই মামলার অপর দুটি পৃথক ধারায় যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত প্রত্যেক আসামীকে আরো ১১ বছর করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।জানা যায়, জমিজমা ও এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ১৯৯৫ সালের ১ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে আসামীরা নিহত সামাদের বাড়ির লোকদের সামনে থেকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে অপহরণ করে নিয়ে আসে। বাড়ির অদূরে প্রাইমারি স্কুলে এনে সামাদকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মৃত ভেবে ফেলে যায়। পরবর্তীতে স্বজনরা এলাকাবাসীর সহায়তায় উদ্বার করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে। আর এই হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় সামাদ মারা যায়। এই ঘটনায় নিহতের বাবা নজর আলী বাদী হয়ে ৭ জনের নাম ঊল্লেখ করে কেশবপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ১৯৯৬ সালের ২৩ জানুয়ারি কেশব পুর থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই ) নাসির উদ্দিন আহম্মেদ ১২ জনকে আসামী করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন । আদালতে বিভিন্ন কার্যদিবসে চার্জশীটভুক্ত ২৭ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে এই রায় ঘোষণা করেন। গেল মার্চ মাসে চাঞ্চল্যকর মামলা হিসেবে যশোরের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ চতুর্থ আদালত থেকে খুলনার বিভাগীয় দ্র’ত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলার নথি পাঠানো হয়।(ডেস্ক)