(দিনাজপুর২৪.কম) মৌলভীবাজারের নাসিরপুরের জঙ্গি আস্তানায় ৭ থেক ৮টি মৃতদেহ রয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের  প্রধান মনিরুল ইসলাম। ওই জঙ্গি আস্তানাটিতে গতকাল বুধবার থেকে আজ বৃহস্পতিবার দুপুর পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা শেষে বিকেলে সিটিটিসি আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ মন্তব্য করেন তিনি।

মনিরুল বলেন, ‘বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে অভিযান শেষ হয়েছে। আমরা ভিতরে বেশকিছু লাশ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকতে দেখেছি। সেগুলো একত্রিত করলে পুরো সংখ্যাটি পাওয়া যাবে। তবে, তা সাত-আটজনের কম হবে না। এরা আত্মহনন করে থাকতে পারে।’

মৌলভীবাজার শহরের বড়হাট ও নাসিরপুরের জঙ্গি এলাকায় গত বুধবার থেকে ঘেরাও করে রাখেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এই বাড়ি দুটির মালিক লন্ডনপ্রবাসী সাইফুর রহমান।

মনিরুল ব্রিফিং এ বলেন, মৌলভীবাজার পুলিশ ফতেপুর আস্তানা ঘেরাও করে রাখে। গত বুধবার পৌছায়। আমার সাথে সোয়াট ও বোম্ব ডিজপোজালের ডিসি উপস্থিত হয়েছে। গতকাল সোয়াট আসার পরে অভিযানের গুরুত্ব ও যে ধরনের বিস্ফোরকের ভান্ডার সেটি বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। টেকটিকাল অপারেশন সোয়াট টিম করবে। এপিবিএন, কাউন্টার টেররিজমের অন্যান্যরা সাপোর্টিভ জায়গায় কাজ করবে। ১২টা বিস্ফোরন ঘটানো হয়। সোয়াটের বিকেলের অভিযানের আগে মাইকের সাহায্যে আ্মসমর্পনের জন্য বারবার অনুরোধ জানায়। আশেপাশের মানুষ শুনেছেন। তারা ওই সময়টাতেই প্রচণ্ড বিস্ফোরন শুরু হয়।

এর আগে মৌলভীবাজার ডিআইজি বলেন, মৌলভীবাজার জেলা পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে বাড়ি দুটি ঘেরাও করে। ঘেরাওয়ের পর গ্রেনেড বিস্ফোরনের মাধ্যমে জানান দিয়েছে। এবিষয়ে সোয়াট টিম উপযুক্ত। তাদের অনুরোধ করি জঙ্গিবিরোধী অভযোন পরিচালনার জন্য। সে অনুযায়ী তারা ঢাকা থেকে এসেছে ডিআইজ মনিরুল ইসলাম। সাথে সোয়াট টিম। -ডেস্ক