মো. নুরুন্নবী বাবু (দিনাজপুর২৪.কম) জাতীয় পতাকা লাল-সবুজের রংয়ের ট্রেনের ২০টি কোচ ভারত থেকে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় পৌছেছে। ট্রেনের কোচগুলোর কারিগরি দিক পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। আমদানীকৃত আরো ১০০টি কোচ শিঘ্রই এসে পৌছাবে।  দিনাজপুরের পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনের সূত্রে জানা যায়, ভারত থেকে আমদানি করা ১২০টি যাত্রীবাহী রেল কোচের প্রথম চালানে ২০টি কোচের সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় পৌঁছেছে। জাতীয় পতাকার রং লাল-সবুজে রাঙানো কোচগুলোর কারিগরি দিক পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায়। কারিগরি ছাড়পত্র পাওয়ার পর ২০টি রেলের কোচ রেলওয়ের ট্রাফিক বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হবে। আমদানী করা নতুন এসব রেলকোচ বিভিন্ন রুটে চলাচল করবে বলে জানিয়েছে রেলওয়ে বিভাগ।
রেলওয়ে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২২ মার্চ ভারত থেকে আমদানি করা ১২০টি কোচের মধ্যে ২০টি কোচের প্রথম চালান দর্শনা স্থলবন্দরে হস্তান্তর করেন ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। ২৩ মার্চ আমদানিকৃত  নতুন রেলওয়ে কোচগুলো সৈয়দপুর স্টেশনে এসে পৌছেলে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়ক (ডিএস) নূর আহম্মাদ হোসেন ও ওয়ার্কসপ ম্যানেজার (ডাব্লুএম) কুদরত-ই-খোদা কোচ ২০টি গ্রহণ করেন।
আমদানি করা ২০টি কোচের মধ্যে ৩টি তাপানুকুল (এসি) বাথ, ৬টি এসি চেয়ার, ৮টি  শোভন চেয়ার এবং ৩টি পাওয়ার কার রয়েছে। সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ১২নম্বর গেট দিয়ে ভারত থেকে আসা রেলকোচ সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার অভ্যন্তরে নেয়া হয়। ভারত থেকে বিশেষজ্ঞরা এসে এসব কোচ পরীক্ষা-নিরীক্ষার শেষে রেলওয়ে বিভাগে হস্তান্তর করা হবে।
আমদানীকৃত রেলকোচগুলো ভারতের কাপুরথালা রেলওয়ে কোচ ফ্যাক্টরিতে তৈরি করা হয়। এসব আমদানি কোচ সিল্ক সিটি, ধুমকেতু, পদ্মা, চিত্রা ও সুন্দরবন আন্তঃনগর ট্রেনে সংযোনের সম্ভাবনা রয়েছে। দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাধায়ক (ডিএস) নূর আহাম্মদ হোসেন জানান, কোচগুলো আমরা গ্রহণ করেছি। এসব কারখানায় পর্যবেক্ষণ করে সাটিফিকেট প্রদান করা হবে। পরীক্ষামূলক দৌঁড়ে (ট্রায়াল রান) পরীক্ষা সমাপ্ত করে রেলওয়ের ট্রাফিক বিভাগে হস্তান্তর করা হবে।