(দিনাজপুর২৪.কম পুরো বিশ্বে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে। এরই মধ্যে ভাইরাসটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১০ লাখেরও বেশি। তবে সুখবর হচ্ছে এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ লাখ ১২ হাজার ৯৯১ জন।

করোনার উপসর্গ হিসেবে আগে থেকে জানা গেছে, এই ভাইরাসে আক্রান্ত হলে সর্দি, কাশি, জ্বর ও শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। তবে এখন করোনা সংক্রমণে দেখা দিচ্ছে নতুন নতুন উপসর্গ।

বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন- ডায়রিয়া, চোখ গোলাপী হয়ে যাওয়া এরকম নানা নতুন নতুন উপসর্গ জেগে উঠছে করোনা সংক্রমণে।

দেখা গেছে শ্বাসকষ্ট না হলেও সর্দি, কাশি, জ্বরের সঙ্গে এই উপসর্গগুলো দেখা দিচ্ছে। তাই এসব লক্ষণ দেখা দিলে চিকিত্‍সকরে পরামর্শ নেয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

স্বাদ ও ঘ্রানশক্তি হারানোর উপসর্গ নিয়ে একাধিক করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি হতে শুরু করেছেন বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। বিশেষ করে আমেরিকায় এই উপসর্গ অধিকাংশ করোনা আক্রান্ত রোগীর মধ্যে দেখা যাচ্ছে। দিন দিন আমেরিকাতেও বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।

হজম শক্তি কমে যাওয়া করোনাভাইরাসের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপসর্গ। যার কারণে ডায়রিয়া উপসর্গ দেখা দিচ্ছে আক্রান্তদের শরীরে। ফলে শরীরে পানি কমে যাচ্ছে। চীনের উহান প্রদেশের করোনা আক্রান্ত রোগীদের এই উপসর্গ বেশি দেখা গিয়েছিল। বিভিন্ন দেশে করোনা আক্রান্ত রোগীদের যে উপসর্গ দেখা দিচ্ছে তার মধ্যে ডায়রিয়া প্রায় সব দেশেই করোনা রোগীদের দেখা দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

করোনা সংক্রমণের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপসর্গ হলো চোখ গোলাপী হয়ে যাওয়া। তবে এই উপসর্গ খুব কম রোগীর শরীরেই দেখা দিয়েছে। এক থেকে তিন শতাংশ করোনা আক্রান্ত রোগীর চোখ গোলাপী হওয়ার প্রবণতা দেখা দিয়েছে। তার সঙ্গে চোখ ফুলে যাওয়ার মতো ঘটনাও ঘটছে।

করোনা আক্রান্ত রোগীদের আবার সাধারণ সর্দি কাশির মতো মাথা ধরাও দেখা দিচ্ছে। কাজেই অনেক সময় পার্থক্য করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে চিকিত্‍সকরা জানিয়েছেন সর্দি, কাশি, জ্বরের সঙ্গে যদি অন্য যে কোনো একটি উপসর্গও দেখা দেয়, তাহলে সঙ্গে সঙ্গে রক্ত পরীক্ষা করান এবং চিকিত্‍সকরে পরামর্শ নিন। এই মাথা ব্যথা বা মাথা ধরার সঙ্গে শরীরে একটা অদ্ভূত অস্বস্তি তৈরি হচ্ছে করোনা আক্রান্ত রোগীদের। -ডেস্ক