(দিনাজপুর২৪.কম) মহামারীর আকারে ছড়াতে থাকা নভেল করোনাভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছে জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়।

এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের হিসাবে বিশ্বের ১৬০টি দেশে ছড়িয়ে পড়া এ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় আড়াই লাখে পৌঁছে গেছে। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৫ হাজারের বেশি মানুষ। খবর সিএনএনের।

গত বছরের শেষ দিক থেকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও স্থানীয় বিভিন্ন উৎস থেকে পাওয়া তথ্য সমন্বয় করে নিয়মিতভাবে একটি টালি প্রকাশ করে আসছেন জনস হপকিন্সের গবেষকরা।

বার্তা সংস্থা বিএনও নিউজের খবরে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ১৭৮ জনে। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৪৬ হাজার ৭২২ জনে। এ ছাড়া সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৮৬ হাজার ৫৪ জন। এরই মধ্যে বিশ্বের ১৭৬ দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস।

যুক্তরাষ্ট্রের জন হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান দিয়ে আলজাজিরার খবরে বলা হয়েছে, করোনায় মারা গেছেন ৯৮০০ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৪০ হাজার লোক। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৮৫ হাজার লোক।

করোনাভাইরাসের হতাহতের পরিসংখ্যান করা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ড ওমেটারের তথ্যানুযায়ী শুক্রবার বেলা ১১টা পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৪৫ হাজার ৮০৫ জন। মারা গেছেন ১০ হাজার ৪৬ জন। আর সুস্থ হয়ে উঠেছে ৮৮ হাজার ৪৪১ জনন।

এর মধ্যে ইতালির অবস্থা সবচেয়ে ভয়াবহ। সেখানে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা। প্রতিদিনই দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত তিন হাজার ৪০৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ গেছে ৪২৭ জন। মৃত্যুর সংখ্যার দিক থেকে এবার চীনকেও হার মানাল ইতালি। এরই মধ্যে চীন করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা একদমই কমিয়ে এনেছে। কিন্তু ইতালিতে সংক্রমণ কমে যাওয়ার কোনো নামগন্ধও নেই। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৪১ হাজার ৩৫ জনে পৌঁছেছে।

ইতালি ছাড়াও ইউরোপের মধ্যে স্পেনের পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার নিয়েছে। সেখানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৩৩ জনে। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১৮ হাজার ৭৭ জনে পৌঁছেছে। করোনা আতঙ্কে স্পেনের পথঘাট জনমানবশূন্য। এ ছাড়া স্পেনের পার্লামেন্টের চিত্রও ছিল এমন।

এ ছাড়া যুক্তরাজ্যে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় দেড়শ। আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়িয়েছে তিন হাজার ২৬৯ জনে। জার্মানিতে ৪৪ জন মৃত্যুর পাশাপাশি আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ হাজার ৩২০ জন। সুইজারল্যান্ডে ৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা চার হাজার ১৬১ জন। নেদারল্যান্ডসে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৭৬ জনের। অন্যদিকে আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৪৬০ জন।

এরই মধ্যে ইউরোপের দেশগুলোতে মহামারী মোকাবেলায় ইউরোপিয়ান সেন্ট্রাল ব্যাংক বরাদ্দ দিয়েছে ৭৫০ বিলিয়ন ইউরো।

এদিকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ইরানে বেড়েই চলছে মৃত্যুর সংখ্যা। যত দিন যাচ্ছে, দীর্ঘ হচ্ছে মৃতের সারি। ইরান সরকারের হিসাব অনুযায়ী, দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত এক হাজার ২৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৪০৭ জনে।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২০৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৪ হাজার ১৪৫ জনে। যুক্তরাষ্ট্রের সবকটি অঙ্গরাজ্যে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবেলায় ১০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ত্রাণ সহায়তা বিল পাস করেছে মার্কিন সিনেট। বিনামূল্যে মার্কিনিদের করোনাভাইরাসের পরীক্ষা এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও কর্মজীবীদের সহায়তার জন্য এই বিল পাস করা হয়েছে। বিলটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে।

করোনা থাবা বসিয়েছে বাংলাদেশেও। এ পর্যন্ত একজন মারা গেছে করোনায়। আক্রান্ত হয়েছেন ১৭ জন।

করোনা আতঙ্কে অনেক দেশই অবরুদ্ধ (লক ডাউন) হয়ে পড়েছে। দোকানপাট, ব্যবসায় বাণিজ্য, স্কুল-কলেজ সব বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। -ডেস্ক