পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, রোহিঙ্গারা কক্সবাজারে পাঁচ হাজার একর বন উজাড় করেছে।তিনি আজ বুধবার মন্ত্রী পরিষদ সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক (ডিসি)’দের সঙ্গে এক বৈঠকের পর এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ডিসিদের সঙ্গে বন ও পরিবেশের সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ডিসিরা কক্সবাজারের সমস্যার কথা বলেছেন। যেখানে বনের যথেষ্ট ক্ষতি হয়েছে। বনের প্রায় ৫ হাজার একরের মতো জমির ক্ষতি হয়েছে। সেটা আবার পুনঃবনায়ন করার ব্যাপারে আমরা কী পদক্ষেপ নিচ্ছি, সেগুলো নিয়ে কথা হয়েছে।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গাদের আমরা যেহেতু আশ্রয় দিয়েছি, সেহেতু ক্ষতি কিছুটা মেনে নিতেই হবে। আমরা তাদের রান্নার জ্বালানী হিসেবে কয়লা দেয়ার চিন্তা করছি। তাদের সিলিন্ডার দেয়ার কথা ভাবা হলেও, দুর্ঘটনা ঘটার কথা চিন্তা করে তা বাদ দেয়া হয়।আনিসুল ইসলাম মাহমুদ জানান, পাহাড়ে গাছ কেটে জুম চাষ করা হচ্ছে। এতে করে মাটি দুর্বল হয়ে পড়ছে এবং ধসের ঘটনা ঘটছে। সমস্যা নিরসনে এসব অঞ্চলের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে না পারলে এই প্রবলেমটা থেকে যাবে।

তিনি আরো বলেন, বর্ষার আরও দু’মাস আছে, এ ব্যাপারে আমাদের সাবধান থাকতে হবে। সেই বিষয়ে ডিসি সাহেবদের বলা হয়েছে।

পাহাড় ধস ও বনভূমি রক্ষায় ডিসিদের নির্দেশনার ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, কাউকে এককভাবে দোষ দেয়া যাবে না। অনেক মানুষ যাদের জমি নেই তারা ওখানে থাকে। অনেকে ওখানে থাকে। এদের উচ্ছেদ করা হলে আবার গিয়ে থাকবে। পাহাড়ে উচ্ছেদ কার্যক্রম কন্টিনিউয়াসলি চলছে।