(দিনাজপুর২৪.কম) কলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে ফের ব্যর্থ সাকিব আল হাসান। তবে তার দল ঠিকই টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে। এতে ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগে (আইপিএল) নাইট রাইডার্স এখন পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। চার ম্যাচে তিন জয় ও এক হারে তাদের পয়েন্ট ৬। অন্যদিকে তিন ম্যাচের প্রতিটি জিতে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের তৃতীয় স্থানে গুজরাট লায়ন্স। কলকাতার হয়ে চলতি মৌসুমের প্রথম দুই ম্যাচ খেলেননি সাকিব আল হাসান। এতে প্রথম ম্যাচ জিতলেও দ্বিতীয় ম্যাচ হারে তারা। সানরাইজার্সের বিপক্ষে দলের তৃতীয় ম্যাচে ফেরেন তিনি। সেখানে ৩ ওভারে ১৮ রান দিলেও কোনো উইকেট পাননি। আর মঙ্গলবার কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে ৪ ওভারে ২৮ রান দিয়ে উইকেট পাননি। আর ব্যাট হাতে ১৫ বলে ফেরেন ১১ রানে। এতে উইকেট খরায় সাকিব। এই দুই ম্যাচের আগে সর্বশেষ তিনি মাঠে নামেন বাংলাদেশের হয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে। ওই ম্যাচেও তিনি ছিলেন উইকেটশূন্য। এতে টানা তিন ম্যাচে উইকেটের দেখা নেই সাকিবের। মঙ্গলবার মোহালিতে টস হেরে আগে ব্যাটে গিয়ে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব সংগ্রহ করে ৮ উইকেটে ১৩৮ রান। জবাবে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে ১৭ বল হাতে রেখে জয় তুলে নেয় গৌতম গম্ভীরের নাইট রাইডার্স। কলকাতার বিপক্ষে এটি পাঞ্জাবের টানা ষষ্ঠ হার। আইপিএলে কোনো দলের বিপক্ষে এটি তাদের টানা সবচেয়ে বেশি হারের বাজে রেকর্ড। এর আগে তারা সর্বোচ্চ টানা পাঁচ ম্যাচ হেরেছিল চেন্নাই সুপার কিংসের বিপক্ষে। মঙ্গলবার পাঞ্জাবের মমুলি টার্গেট সামনে নিয়ে উদ্বোধনী জুটিতে ৮.৩ ওভারে ৮২ রান তুলে ফেলে কলকাতা। অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর ৩৪ বলে ৩৪ রানে ফেরার পর রবিন উথাপ্পা ২৮ বলে খেলেন ৫৩ রানের ইনিংস। পাওয়ার প্লেতে কলকাতা তোলে ৫৬ রান। যা চলতি আসরে পাওয়ার প্লেতে সর্বোচ্চ রান তোলার ঘটনা। এর আগে ব্যাঙ্গালুরু পাওয়ার প্লেতে ৬৩ রান তোলে দিল্লির বিপক্ষে।  এর আগে পাঞ্জাবের হয়ে ৪১ বলে সর্বোচ্চ ৫৬ রান করেন শন মার্শ। আইপিএলে কলকাতার বিপক্ষে মার্শের এটি প্রথম ফিফটি। এছাড়া উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মুরলি বিজয় করেন ২৬ রান। এছাড়া বাকি ৭ ব্যাটসম্যানের রান দুই অঙ্কের কোটা পার হয়নি।-ডেস্ক