(দিনাজপুর২৪.কম) ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম টেস্টের তৃতীয় দিন ৫ উইকেটে ৫৫ রান নিয়ে শুরু করে বাংলাদেশ। দলকে ভরসা দেওয়ার জন্য ব্যাটে ছিলেন মুশফিকুর রহিম ও মেহেদি মিরাজ। কিন্তু দিনের শুরুতে আউট হয়ে ফেরেন তারা। এরপর ফেরেন ভালো খেলা মাহমুদুল্লাহও। তিনি ফিরতেই ১২৫ রানে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। দুই ইনিংস মিলিয়ে ২০৩ রানের লিড পেয়েছে বাংলাদেশ। জিততে হলে সফরকারীদের করতে হবে ২০৪ রান। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেন মাহমুদুল্লাহ। তিনি ৩১ রানে ফেরেন। সঙ্গে থাকা নাঈম ফেরেন ৫ রানে। বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে কেউই ভালো করতে পারেননি। তৃতীয় দিনের শুরুতে মুশফিক ফেরেন ১৯ রানে। এরপর মেহেদি মিরাজ ফেরেন ১৮ রানে। তার আগে ১২ এবং ১৭ রানে ফেরেন মুমিনুল এবং মিঠুন। এর আগে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে ৩২৪ রানের জবাবে ম্যাচের দ্বিতীয় দিনে গতকাল দুই সেশনে অল-আউট হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তাদের সংগ্রহ ছিল ২৪৬ রান। বাংলাদেশ লিড পায় ৭৮ রানের। গতকালই শেষ সেশনে দ্বিতীয় ইনিংস খেলতে নেমে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে স্বাগতিকরা। অহেতুক শট খেলতে গিয়ে উইকেট বিলিয়ে দেন ব্যাটসম্যানরা। ৩৫ রানের মধ্যে ৪ উইকেট হারানোর পর ৫ উইকেটে ৫৫ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করে বাংলাদেশ। দলীয় ১৩ রানে ২ রান করে ওয়ারিক্যানের বলে অযথা ড্রাইভ খেলতে গিয়ে বোল্ড হয়ে যান ইমরুল। তার ওপেনিং সঙ্গী সৌম্য সরকার (১১) রোস্টন চেইসকে তুলে মারতে গিয়ে স্লিপে ক্যাচ দেন।

প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান মুমিনুল হক চেইজের বলে এলবিডাব্লিউ হয়ে যান ১২ রান করে। অধিনায়ক সাকিব (১) ওয়ারিক্যানকে স্লগ সুইপে ছক্কা মারতে গিয়ে ক্যাচ দেন। দেবেন্দ্র বিশুর বল ডিফেন্ড করতে গিয়ে মিঠু বোল্ড হলে ৫৩ রানে ইনিংসের অর্ধেক শেষ হয়ে যায় স্বাগতিকদের।

২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে দুই ম্যাচের সিরিজ ২-০ ব্যবধানে জিতেছিল বাংলাদেশ। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে এখন পর্যন্ত সেটিই একমাত্র সিরিজ জয়ের সাফল্য হয়ে আছে টাইগারদের জন্য। -ডেস্ক