(দিনাজপুর২৪.কম) ওমানে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮ টায় বাংলাদেশ দূতাবাস প্রাঙ্গনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণের মধ্যে দিয়ে শুরু হয় দিবসের কর্মসূচি। ওমানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম সরোয়ার জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন।সকাল ৯ টা থেকে প্রভাতফেরির মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ স্কুল মাস্কাটের শহীদ মিনারের বেদিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় সর্বস্তরের প্রবাসীরা।দূতাবাসের কর্মকর্তাদের নিয়ে রাষ্ট্রদূত গোলাম সরোয়ার প্রথম পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর একে একে স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটি, বাংলাদেশ সোশ্যালক্লাব ওমান, ওমান আওয়ামী লীগ, ওমান বঙ্গবন্ধু পরিষদ, চট্টগ্রাম সমিতি ওমান, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন, আওয়ামী যুবলীগ, বাংলাদেশ সমিতিসহ বিভিন্ন সংগঠন, সাধারণ প্রবাসী এবং সবশেষে স্কুলের দেশী-বিদেশী শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।শহীদদের জন্য মোনাজাতও করে কয়েকটি সংগঠন।এ উপলক্ষে বাংলাদেশ স্কুলের উদ্যোগে একুশের চিত্রাংকণ প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। স্কুলের দেশী-বিদেশী অনেক শিক্ষার্থী এতে অংশ নেয়।রাষ্ট্রদূত ও দূতাবাস কর্মকর্তারা এবং কমিউনিটি নেতারা প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। এসময় স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির পরিচালক প্রকৌশলী আশরাফুর রহমান, মোহাম্মদ আনোয়ার, প্রকৌশলী জুবায়ের আহমেদ, মো. নাসিরউদ্দিন এবং অধ্যক্ষ ফারজানা করিম উপস্থিত ছিলেন।সন্ধ্যায় দূতাবাস মিলনায়তনে আয়োজন করা হয় প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন, শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া পাঠ, মোনাজাত এবং অমর একুশের আলোচনা।রাষ্ট্রদূত গোলাম সরোয়ারের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন দুতাবাসের হেড অব চ্যান্সরী নাহিদ ইসলাম, প্রথম সচিব আবু সাইদ, দ্বিতীয় সচিব আনোয়ার হোসেন, চট্টগ্রাম সমিতি ওমানের সভাপতি মোহাম্মদ ইয়াছিন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী তাপস বিশ্বাস, ওমান কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা প্রকৌশলী মোস্তফা কামাল।কিবরিয়া কামাল, মোহাম্মদ নোমান, নুরুল ইসলাম নুরু ও সবুজ সিকদার, ওমান বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. জসীমউদ্দিন, ওমান বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি ইবনে মিজান রুবেল বক্তব্য রাখেন।কমিউনিটির নেতারা একুশের শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে মহান একুশের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ গড়ার কাজে প্রবাসীদের একযোগে কাজ করার আহবান জানান।সভাপতি বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত গোলাম সরোয়ার ভাষাশহীদদের অমূল্য ভূমিকা ও অবদানের কথা গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করেন। বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শি পদক্ষেপে আমাদের মহান একুশে ফেব্রুয়ারী যেভাবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভ করেছে সেভাবে¡ বাংলা ভাষা একদিন জাতিসংঘের দাপ্তরিক ভাষার মর্যাদাও পাবে বলে আমাদের বিশ্বাস। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা এগিয়ে নিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ঐক্যের ওপর জোর দেন।সভার শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ওপর রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পাঠানো বাণী পড়ে শোনানো হয়। এ সময় ভাষাশহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।-ডেস্ক