(দিনাজপুর২৪.কম) নাটোরের বড়াইগ্রামে উপজেলার দক্ষিণ মালিপাড়া গ্রামে একটি দোকানে চুরির অভিযোগে এক কিশোরসহ ২ জনকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। বিষয়টি সামাজিক ভাবে শালিশ করে মিমাংসা করে ধামাচাপা দেয়া হলেও মোবাইল ফোনে ধারণকৃত দৃশ্য ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়লে এটি নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়। মঙ্গলবার রাতেই নাটোরের পুলিশ সুপারসহ পুলিশের ঊর্ধতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি এবং কাউকে আটকও করা হয়নি।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, গত ৩১শে জুলাই বড়াইগ্রাম উপজেলার দক্ষিণ মালিপাড়া গ্রামের বুলবুল হোসেনের মুদির দোকানে চুরির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার দু’দিন পর রোববার সন্দেহমূলক ভাবে গ্রামেরই দিন মজুর আবু সামা ও শাকিল ওরফে শাকিব নামে অপর এক কিশোরকে ধরে চুরি হওয়া দোকানের সামনে সুপারি গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্দয় ভাবে পেটানো হয়। এ সময় নির্যাতিত আবু সামা নিজেকে নির্দোষ দাবি করলেও রেহাই পায়নি নির্যাতন থেকে। তবে ৮ম শ্রেণির ছাত্র কিশোর শাকিল নিজে চুরি না করলেও চুরির সময় পাহাড়া দিয়েছে বলে স্বীকার করেছে।
নাটোরের পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার মুখার্জী জানান, একটি চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে  পেটানোর খবর শুনে তিনি নিজে সেখানে গিয়েছিলেন। তবে এ ব্যাপারে কেউ কোন লিখিত অভিযোগ দেয়নি। তারপরও তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।-ডেস্ক