1. dinajpur24@gmail.com : admin :
  2. dinajpur24@gmail.com : akashpcs :
  3. self@unliwalk.biz : brandymcguinness :
  4. ChristineTrent91@basic.intained.com : christinetrent4 :
  5. Dinah_Pirkle28@lovemail.top : dinahpirkle35 :
  6. cruz.sill.u.s.t.ra.t.eo91.811.4@gmail.com : howardb00686322 :
  7. azegovvasudev@mail.ru : latricebohr8 :
  8. kenmacdonald@hidebox.org : moset2566069 :
  9. news@dinajpur24.com : nalam :
  10. vaughnfrodsham2412@456.dns-cloud.net : reneseward95 :
  11. Sonya.Hite@g.dietingadvise.club : sonya48q5311114 :
  12. jcsuave@yahoo.com : vaniabarkley :
সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ১২:২৩ অপরাহ্ন
নোটিশ :
নতুন রুপে আসছে দিনাজপুর২৪.কম! ২০১০ সাল থেকে উত্তরবঙ্গের পুরনো নিউজ পোর্টালটির জন্য দেশব্যাপী সাংবাদিক, বিজ্ঞাপনদাতা প্রয়োজন। সারাদেশে সংবাদকর্মী নিয়োগ দেয়া হবে। আগ্রহীরা এখনই প্রয়োজনীয় জীবন বৃত্তান্ত সহ সিভি dinajpur24@gmail.com এ ইমেইলে পাঠান।

এনআইডি না থাকলেও তথ্য সংশোধন করা যাবে

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ৮ জুন, ২০১৭
  • ১ বার পঠিত
(দিনাজপুর২৪.কম) নাগরিকদের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে উন্নতমানের জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্টকার্ড)। এর আগে নাগরিকদের হাতে লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) ছিল। কিন্তু স্মার্টকার্ড প্রকল্প হাতে নেওয়ার পর থেকে নতুন ভোটারদেরকে লেমিনেটেড এনআইডি দেওয়া বন্ধ করে দেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)।
ইসি সূত্রে জানা যায়, এ জন্য এনআইডি সংক্রান্ত ভোগান্তিতে রয়েছে প্রায় সোয়া কোটি নাগরিক। যাদের হাতে কোনো এনআইডি নেই। এনআইডি না থাকা নাগরিকদের ভোগান্তি কমানোর জন্য আপাতত ‘জাতীয় তথ্য বিবরণী’ ব্যবহার করতে বলছে ইসি। কিন্তু তাতেও নাগরিকদের সমস্যার সমাধান হচ্ছে না। ‘জাতীয় তথ্য বিবরণী’তে অনেকের তথ্যেই ভুল ধরা পড়ছে। কিন্তু তারা এ ভুল কীভাবে সংশোধন করবেন তার কোনো সঠিক দিক নির্দেশনা পাচ্ছেন না। আর তথ্য ভুল থাকার কারণে তারা করতে পারছেন না পাসপোর্টসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। ২০১৪ সালে যারা ভোটার হয়েছেন এমন নাগরিকদেরকেও কোনো এনআইডি দেয়নি ইসি। ফলে এই চার বছরে যারা ভোটার হয়েছেন তারা নানাভাবে প্রতিনিয়ত এনআইডি সংক্রান্ত ভোগান্তি পোহাচ্ছেন।
এমন ভোগান্তির শিকার তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকার ভোটার ফরিদ সোহাইন। তিনি বলেন, ‘ভোটার হয়েছি সেই কবে। কিন্তু এখনো জাতীয় পরিচয়পত্র পেলাম না। জাতীয় তথ্য বিবরণীতে দেখি আমার নাম এবং জন্ম তারিখে ভুল আছে। কিন্তু এই ভুল সংশোধন কীভাবে করতে হবে বা আদৌ করা যাবে কিনা তার সঠিক কোনো দিক নির্দেশনা পাচ্ছি না। সেজন্য জরুরি হওয়া সত্ত্বেও আমার পাসপোর্ট করতে পারছি না।
তিনি বলেন, কবে এনআইডি কার্ড হাতে পাবো তারই কোনো ঠিক নেই। তাই এ বিষয়টি সমাধানের জন্য কমিশনের সুনির্দিষ্ট বক্তব্য থাকলে ভালো হতো।
এ বিষয়ে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, জাতীয় পরিচয়পত্র নেই এমন নাগরিকদের সংখ্যা ১ কোটি ১৭ লাখের মতো। এদের হাতে জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দেওয়ার জন্য আমরা রাত-দিন কাজ করে যাচ্ছি। আর যারা এখনো জাতীয় পরিচয়পত্র পাননি অথচ তাদের তথ্য বিবরণীতে ভুল তথ্য রয়েছে- এমন নাগরিকেরা সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে তা সংশোধন করতে পারবেন। এজন্য তাদের কাছে থাকা প্রাপ্তি রশিদ দেখিয়ে নির্ধারিত ফি এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে গেলেই তাদের তথ্য সংশোধন করে দেওয়া হবে।
স্মার্টকার্ড নির্ভুলভাবে প্রিন্ট করা সম্পর্কে এনআইডির মহাপরিচালক বলেন, আমরা পরিকল্পনামাফিক কাজ করছি। যেসব এলাকায় স্মার্টকার্ড দেওয়া হবে তাদেরকে ৭৫ দিন আগে জানানো হচ্ছে। প্রথমে আমরা ওই এলাকার স্মার্টকার্ড প্রিন্ট দিচ্ছি। তারপর দেখছি কোন কার্ডগুলো প্রিন্ট হয়নি। যেগুলো প্রিন্ট হবে না সংশ্লিষ্ট থানা নির্বাচন অফিসে তার একটা তালিকা প্রকাশ করা হবে। যাদের কার্ডে যে অংশে সমস্যা আছে, পুনরায় ফরম পূরণ করিয়ে তা আবার প্রিন্ট দিয়ে ওই এলাকায় পাঠানো হবে।
২০১৬ সালের ৩ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাজধানীতে স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। বর্তমান কমিশন দায়িত্ব নেওয়ার পর ১৩ মার্চ চট্টগ্রাম মহানগরীতেও এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা এবং রাজশাহীতে ২ এপ্রিল এ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম। এছাড়া ১১ জুন থেকে বরিশাল সিটি করপোরেশনে স্মার্টকার্ড বিতরণের কথা রয়েছে। ওই দিন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের এ বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করার কথা রয়েছে।
ইসি সূত্র জানায়, ২০১৫ সালের ১৪ জানুয়ারি ১৮ মাসের মধ্যে ৯০ মিলিয়ন (৯ কোটি) স্মার্টকার্ড তৈরি করে দেওয়ার জন্য ফ্রান্সের ‘অবার্থার টেকনোলজিস’ নামের একটি কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করে ইসি। চুক্তি অনুযায়ী ২০১৬ সালের জুনে নাগরিকের হাতে স্মার্টকার্ড দেওয়ার কথা ছিল ইসির। কিন্তু সময়মতো না দিতে পারার আশঙ্কা ইসি মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই ব্যয় না বাড়ানোর শর্তে এ প্রকল্পে আরো ১৮ মাস সময় বাড়িয়ে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় নেয়।
ইসির তথ্য অনুযায়ী, দেশের ১০ কোটি ১৭ লাখ ভোটারের মধ্যে ৯ কোটির হাতে লেমিনেটেড এনআইডি রয়েছে। প্রথম থেকে এটি সংশোধন বা হারানো সেবা বিনামূল্যে দেওয়া হলেও ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর থেকে ফি নেওয়া শুরু করে কমিশন। -ডেস্ক

নিউজট শেয়ার করুন..

এই ক্যাটাগরির আরো খবর