(দিনাজপুর২৪.কম) চলতি সময়ের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ইমরান। ধারাবাহিকভাবে এখন পর্যন্ত অনেক শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন তিনি। চ্যানেল আই সেরাকন্ঠ প্রতিযোগিতা থেকে বের হবার পর থেকে তার গানের ব্যস্ততা কেবল বেড়েছে। অ্যালবামের মাধ্যমে ‘দূরে দূরে’, ‘মানে না মন’, ‘আরাধনা’, ‘কি যাদু’, ‘শেষ সূচনা’, ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’, ‘ফিরে আসো না’, ‘বাহুডোরে’, ‘নিশি রাতে চান্দের আলো’, ‘সবাই চলে যাবে’সহ আরো বেশ কিছু গান শ্রোতাপ্রিয়তা পেয়েছে এ শিল্পীর কন্ঠে। এ গানগুলোর সুর ও সংগীতায়োজনও করেছেন তিনি নিজেই। ইউটিউবে তার সর্বাধিক জনপ্রিয় গান ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’ এরই মধ্যে এক কোটি ৩০ লাখের ঘর অতিক্রম করেছে, এটা সবারই জানা। নতুন খবর হলো তার আরও দুটি গান এক কোটির ঘর স্পর্শ করা থেকে অল্পই দূরে রয়েছে। এ গানগুলো হলো ‘ফিরে আসো না’ এবং ‘বসগিরি’ ছবির ‘দিল দিল দিল’। এর মধ্যে প্রথমটি ৯২ লাখ এবং দ্বিতীয়টি সাড়ে ৯৩ লাখ দর্শক উপভোগ করেছেন ইউটিউবে। শুধু তাই নয়, সম্প্রতি ইমরান আরও একটি মাইলফলক স্পর্শ করেছেন। সেটি হলো বাংলাদেশের প্রথম শিল্পী হিসেবে তার ইউটিউবের সাবস্ক্রাইবার এরই মধ্যে এক লাখ অতিক্রম করেছে। ইউটিউব কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ‘সিলভার বাটন অ্যাওয়ার্ড’ পেতে যাচ্ছেন তিনি। সব মিলিয়ে বর্তমানে বেশ সুসময় পার করছেন এ জনপ্রিয় শিল্পী-সংগীত পরিচালক। এ বিষয়ে তিনি বলেন, সুসময় কি না জানি না। তবে শ্রোতাদের ভালোবাসাই রয়েছে এ সফলতার মূলে। আমি খুব আনন্দিত যে ‘বলতে বলতে চলতে চলতে’র পর আমার আরও দুটি গান কোটির ঘর স্পর্শ করতে যাচ্ছে। আর ইউটিউবে এক লাখ সাবস্ক্রাইবারের বিষয়টি সত্যিই আমার জন্য অবাক করার ছিলো। একদিক থেকে আমি বেশ সৌভাগ্যবানও বটে। কারণ মাত্র ছয়টি ভিডিও আমি আমার ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করেছি। দুই বছরেই চ্যানেলটি এক লাখ সাবস্ক্রাইবার পেলো। এর জন্য আমার ভক্ত-শ্রোতা ও শুভানুধ্যায়িদের প্রতি অনেক কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা জানাচ্ছি। এদিকে গত বছরের মতো করেই এ বছরও ইমরান বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন নতুন গান নিয়ে। বছরের শুরুতেই প্রকাশ হয়েছে তার ‘আলো-ছায়া’ গানের ভিডিও। সম্প্রতি তার ‘ভাসি ডুবি’ শীর্ষক আরও একটি গানের ভিডিও দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছে। আর ভালোবাসা দিবসে লেজারভিশনের ব্যানারে প্রকাশ হয়েছে তার নতুন গান ‘যদি হাতটা ধরো’। এ গানটিতে তার সহশিল্পী বৃষ্টি। এরই মধ্যে গানটি বেশ পছন্দ করছেন শ্রোতারা। খুব শিগগিরই প্রকাশ হবে এর মিউজিক ভিডিও। অন্যদিকে এরই মধ্যে ইমরান পড়শীর সঙ্গে নিজের প্রথম দ্বৈত অ্যালবামের কাজ শেষ করেছেন। ‘আবদার’ শিরোনামের এ অ্যালবামটি আগামী কিছুদিনের মধ্যেই সিডি চয়েজের ব্যানারে প্রকাশ পাবে। ক্যারিয়ারের প্রথম কয়েক বছর অ্যালবাম নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও গত দুই বছর ধরে সিনেমার গানেও সমান সফলতা পেয়েছেন ইমরান। অডিওর পাশাপাশি চলচ্চিত্রের গান নিয়েও তিনি এখন দারুণ ব্যস্ত। নতুন বছরে কয়েকটি ছবির গানে কন্ঠ দিয়েছেন। এদিকে দেশের পাশাপাশি বিদেশের বিভিন্ন স্টেজ শো নিয়েও ব্যস্ত এ শিল্পী। আসছে এপ্রিল মাসেই কানাডা সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে তার। সেখানে প্রবাসীদের আমন্ত্রণে প্রায় দুই সপ্তাহ থাকবেন তিনি। অংশ নিবেন একাধিক শোতে। সব মিলিয়ে চলতি ব্যস্ততাটা কেমন উপভোগ করা হচ্ছে? ইমরান বলেন, আসলে এখন এমন অবস্থা তৈরি হয়েছে যে, আমি অবসর সময় চাইলেও পাওয়া যায় না। কারণ কাজ একের পর এক লেগেই আছে। এই ব্যস্ততাটাও অবশ্য উপভোগ করছি আমি। চলতি সময়ে মিউজিক ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা কেমন মনে হচ্ছে? ইমরান বলেন, এটা বিশ্বায়নের যুগ। তাই বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এখন ডিজিটালি গান প্রকাশ হচ্ছে। ইউটিউব কিংবা মোবাইলে গান শুনছেন শ্রোতারা। যার কারণে সিডির দোকানই উঠে যাচ্ছে। এখন অনেক কোম্পানিই সিডি প্রকাশ করে না। আমি এটিকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখি। কারণ প্রযুক্তির সঙ্গে সঙ্গে গান প্রকাশের মাধ্যমে পরিবর্তন আসবে এটাই স্বাভাবিক। আমরা যত কিছুই বলি না কেন ইউটিউব এখন বাংলাদেশে গান শোনার অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম। শহরের পাশাপাশি গ্রামের মানুষজনও এখন ইউটিউব ব্যবহার করছে। আমি বিভিন্ন জায়গায় শো করতে গেলেও এরকম দৃশ্য দেখতে পাই। এ মাধ্যমটি সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সামনে আরও জনপ্রিয় হবে বলেই আমার বিশ্বাস। -ডেস্ক